1. mdjoy.jnu@gmail.com : admin : Shah Zoy
  2. stvsunamgonj@gmail.com : Admin. :
রবিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২২, ১১:০৪ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
সিলেটে বাংলাদেশ নারী মুক্তি সংসদের জেলা সম্মেলন অনুষ্ঠিত সুনামগঞ্জের শামীমসহ ‘দুই জঙ্গি’ ছিনতাই : বিভিন্ন স্থানে পুলিশের ব্লক রেইড আর্তমানবতার সেবায় রেড ক্রিসেন্ট অসাধারণ ভূমিকা রাখছে-নাসির উদ্দিন খান লায়ন্স ক্লাব এর খাদ্য সামগ্রী বিতরণ উন্নয়নের ক্ষেত্রে ভাটি এলাকা আর পিছিয়ে থাকবে না-পরিকল্পনামন্ত্রী এম. এ. মান্নান সিলেট মোটরসাইকেল পার্টস মার্চেন্ট এসোসিয়েশনের বার্ষিক সাধারণ সভা খালেদার বাসায় প্রবেশের সড়কে পুলিশের চেকপোস্ট বিজয়ের মাসে বাংলাদেশ বৌদ্ধ যুব পরিষদ’র উদ্যোগে সিলেটে শীতবস্ত্র দান সিলেট শহরতলীর দক্ষিণ সুরমায় অবৈধ শিলংতীর জুয়া ও মাদকের জমজমাট আসর কোম্পানীগঞ্জে রাতের আধাঁরে দুর্বৃত্তের আগুনে পুড়ল অটোরিকশা

সৎ পিতার ধর্ষণে মা হলো কিশোরী, ন্যায় বিচার বঞ্চিত ধর্ষিতা!

Reporter Name
  • আপডেট করা হয়েছে সোমবার, ২২ আগস্ট, ২০২২
  • ৫৪৩ বার পড়া হয়েছে

বিশেষ প্রতিনিধি:

সুনামগঞ্জের মধ্যনগরে সৎ পিতার ধর্ষণে গর্ভবতী কিশোরী সৎ কন্যা। ন্যায় বিচারের আশায় দ্বারে দ্বারে ঘুরছে। ঘটনাটি ঘটে গত ২রা আগষ্ট মধ্যনগর উপজেলার দুগনই গ্রামে।

স্থানীয় সুত্র জানায়, ২০১৪ সালে মধ্যনগর থানার দুগনই গ্রামের বিধবা নিফুল আক্তারকে বিয়ে করেন বংশীকুন্ডা ইউনিয়নের মোহাম্মেদ আলীপুর গ্রামের মৃত মনির উদ্দিন তালুকদারের পুত্র ইউনুস আলী তালুকদার। বিবাহের পর দ্বিতীয় স্বামী ইউনুছ আলীর ঔরষে ও নিফুল আক্তারের গর্ভে একটি পুত্র সন্তান জন্ম নেয় এবং জীবিত আছে। তার নাম ইকরাম (৭)। দারিদ্রতার কারণে নিফুল আক্তার ১ম স্বামীর কন্যা সন্তানসহ চট্টগ্রামে চলে যান কাজের সন্ধানে। সেখানে কিশোরী কন্যাসহ একটি বাসা বাড়ী নিয়ে নিফুল আক্তার গার্মেন্ট এ চাকুরী করে জীবন জীবিকা পরিচালনা করে আসাবস্থায় দ্বিতীয় স্বামী ইউনুছ আলীও চলে যান সেখানে এবং বসবাস করতে থাকেন। নিফুল আক্তার কাজে যাওয়ার সুযোগে সৎ পিতা ইউনুছ আলী যৌন লালসা চরিত্রার্থ করতে কিশোরী মেয়েকে ভয়ভীতি দেখিয়ে ইচ্ছার পূর্বে একাধিকবার ধর্ষণ করতে থাকেন। কিছুদিন পর মা নিফুল আক্তার দেখতে পান তার কিশোরী মেয়ের পেঠ বড় হচ্ছে এবং সন্দেহ দেখা দিলে স্থানীয় ডাক্তারের কাছে পরীক্ষা করে দেখতে পান তার কিশোরী মেয়ে গর্ভবর্তী। বিষয়টি নিয়ে মেয়েকে ভালভাবে জিজ্ঞাসাবাদ করার পর কিশোরী জানান, সৎ পিতা ইউনুস আলীই তার সর্বনাশ করেছে। ভয় ভীতি দেখিয়ে তাকে ধর্ষণ করেছে। অসহায় মা গর্ভবর্তী মেয়েকে নিয়ে এলাকায় চলে আসেন এবং কয়েকবার বিচার শালিশ করেও ন্যায় বিচার পাননি। ইউনুছ আলী প্রভাবশালী হওয়ায় এলাকার পঞ্চায়েতসহ আইনশৃংখলা বাহিনীও বিষয়টি আমলে না নিয়ে ধামাচাপার আশ্রয় গ্রহন করেন। এরই মধ্যে গত ২রা আগষ্ট কিশোরীর কোল জুড়ে জন্ম নেয় এক ফুটফুটে ছেলে সন্তান। অভাব, অবহেলা, অনাদর ও চিকিৎসার অভাবে সন্তানটি গত ১৪ আগষ্ট মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে। বর্তমানে কিশোরী মা সন্তান হারিয়ে ও ন্যায় বিচার না পেয়ে পাগলের মত হয়ে গেছে। স্থানীয় বিচার শালিসের একজন আব্দুল আওয়াল জানান, ইউনুছ আলী চট্টগ্রামে থাকাবস্থায় তার সৎ মেয়েকে ধর্ষণ করার কারণে গর্ভবর্তী হয়ে পড়েছিল এবং একটি পুত্র সন্তানও জন্ম হয়েছিল। শিশুটির অবহেলা, অযতেœ ও চিকিৎসার অভাবে গত ১৪ আগষ্ট মারা যায়। এ ধরনের ধর্ষনকারীর বিচার হওয়া দরকার। অসহায় মা নিফুল আক্তার জানান, আমার দ্বিতীয় স্বামী আমার কিশোরী মেয়েকে সর্বনাশ করেছে। তার বিচার কোথাও পাচ্ছি না। আমি ন্যায় বিচার চাই।

অভিযুক্ত ইউনুস আলীর বক্তব্য জানতে তার মোবাইল ফোনে বার বার কল দিলে রিসিভ না করায় বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।

মধ্যনগর থানার ওসি জাহিদুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, আমার থানায় একটি অভিযোগের প্রেক্ষিতে একজন পুলিশ কর্মকর্তা বিষয়টি তদন্ত করেন এবং ধর্ষিতাকে জিজ্ঞাসাবাদে ঘটনার সত্যতা পাওয়া যায় কিন্তু ঘটনার স্থল চট্টগ্রামে হওয়ায় আমরা আইনী পদক্ষেপ নিতে পারি না। তবে ধর্ষিতা ও তার মা’কে পরামর্শ দিয়েছিলাম চট্টগ্রামের আদালতে মামলা করতে। পরবর্তীতে আর কি হয়েছে জানি না।

সংবাদটি শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন