1. mdjoy.jnu@gmail.com : admin : Shah Zoy
  2. satvsunamgonj@gmail.com : Admin. :
মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ০৯:২৬ পূর্বাহ্ন
  •                          

হাওরাঞ্চলের কথা ইপেপার

ব্রেকিং নিউজ
সিলেট নাসিং হোস্টেল যেন মিনি কারাগার! পাসপোর্ট অফিসে কোন ধরনের হয়রানী সহ্য করা হবে না— যুগ্ম সচিব নাসরিন জাহান সিলেট মহানগরীর উপশহরে হাতুড়ে ডাক্তারের বিরুদ্ধে প্রতারনার অভিযোগে মামলা রুজু জলবায়ু পরিবর্তনের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় কৃষি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে— কৃষি মন্ত্রী সিলেটের সাপ্তাহিক বাংলার বারুদ পত্রিকার সাবেক প্রধান সম্পাদক ওসমানী হাসপাতালে ভর্তি জহিরিয়া হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষক রুহুম আমিন ছিলেন জ্ঞানের সাগর— স্মরণ সভায় বক্তারা মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে নানান অনিয়মের দায়ে আইসক্রিম উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা তাহিরপুরে কুকুরের কামড়ে নারী-পুরুষ ও শিশুসহ অন্তত ১৬ জন আহত, দ্রত ব্যবস্থা নেয়ার দাবী প্রকৌশলী হতে চায় শাহরিয়ার তায়্যিব টানা ৩য় বারের মতো শ্রেষ্ঠ অফিসার ইনচার্জ নির্বাচিত হলেন ওসি হারুনূর রশিদ চৌধুরী

সুনামগঞ্জ সড়ক বিভাগে পুকুর চুরি : কাজ না করে ৪০ কোটি টাকা আত্মসাত

Reporter Name
  • আপডেট করা হয়েছে রবিবার, ১৫ অক্টোবর, ২০২৩
  • ১৪৯ বার পড়া হয়েছে

হাওরাঞ্চল ডেস্ক:

ক্ষমতাসীন দলের প্রভাবশালী পরিকল্পনামন্ত্রী ও সুনামগঞ্জ—৩ আসনের এমপি আলহাজ্ব এম এ মান্নানের বাড়ি সুনামগঞ্জের শান্তিগঞ্জে। খোদ মন্ত্রীর বাড়ি এলাকায় কাজ না করেই ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে বিল পরিশোধ করেছেন সড়ক ও জনপথ বিভাগ (সওজ)। এক কিলোমিটার কাজ করে বিল দেয়া হয়েছে ৯ কিলোমিটারের।

সিলেট—সুনামগঞ্জ সড়কের শান্তিগঞ্জ থেকে সুনামগঞ্জ শহরের ট্রাফিক পয়েন্ট পর্যন্ত সড়কের মাটির কাজে এমন পুকুর চুরির মত ঘটনাটি ঘটেছে। শুধু মন্ত্রীর বাড়ি এলাকা নয়, পার্শ্ববর্তী মদনপুর—দিরাই সড়কের শূন্য থেকে ২৬ কিলোমিটার রাস্তার কাজ না করেই অর্ধেক বিল উত্তোলন করা হয়েছে বলে সুত্র জানিয়েছে। ৩০ কোটি ৩৭ লাখ টাকার কাজের মধ্যে কার্যাদেশের ১৮ দিনের মাথায় কাজ শুরু না করেই ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে বিল পরিশোধ করা হয়েছে ৯ কোটি ৩৮ লাখ টাকা। আর সিলেট—সুনামগঞ্জ সড়কের শান্তিগঞ্জ থেকে সুনামগঞ্জ ট্রাফিক পয়েন্ট পর্যন্ত পিএমপি কাজের ২৯ কোটি ৯৫ লাখ টাকার মধ্যে পরিশোধ করা হয়েছে ১৭ কোটি ২৩ লাখ টাকা। সব মিলিয়ে কাজ না করে ও অবৈধভাবে প্রায় ৪০ কোটি টাকার বিল পরিশোধ করেছে সড়ক বিভাগ। সুনামগঞ্জ সড়ক বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী ও ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান সিন্ডিকেট করে এমন পুকুরচুরির ঘটনা ঘটিয়েছে বলে একাধিক ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান অভিযোগ করেছে। সম্প্রতি সরেজমিন পরিদর্শনে গেলে কাজ না করে বিল উত্তোলন ও আংশিক কাজ করে পুরো বিল উত্তোলনের সত্যতা পাওয়া যায়। শুধু সিলেট—সুনামগঞ্জ সড়ক নয়, সিলেট বিভাগের বিভিন্ন সড়কে ২০২২—২৩ অর্থ বছরে ৬৩৫ কোটি টাকার কাজে ব্যাপক অনিয়ম করা হয়েছে বলেও অভিযোগ রয়েছে। যে টাকা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সিলেট বিভাগের বন্যা—পরবর্তী সড়ক মেরামত ও রক্ষণাবেক্ষণের জন্য বিশেষ বরাদ্দ দিয়েছিলেন সে টাকার পুরোটাই আত্মসাৎ করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠছে।

একাধিক সুত্র জানায়, প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ বরাদ্দের বাইরেও সিলেটে সড়ক বিভাগের কাজে ব্যাপক অনিয়ম চলছে। এর মধ্যে সিলেট—সুনামগঞ্জ সড়কের গোবিন্দগঞ্জ এলাকার আল আমিন ফিলিং স্টেশন থেকে কাড়াই ব্রিজ পর্যন্ত ডিবিএসটির কাজ একটি। পাম্পের পাশ থেকে মাইলেজ পয়েন্ট ২৭, ২৮, ২৯, ৩৩, ৩৪ ও ৩৫ কিলোমিটার পর্যন্ত এ কাজটি পায় নওগাঁর ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান মোহাম্মদ আমিনুল হক প্রাইভেট লিমিটেড। গত জুন মাসে কার্যাদেশ দেওয়া হয়েছে। দেড় কোটি টাকার এ কাজ না করেই ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে বিল পরিশোধ করেছে সওজ বিভাগ। টাকা উত্তোলন শেষ ভাগবাটোয়ারাও করা হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। সরেজমিন ওই এলাকা পরিদর্শন করে কাজের কোনো চিহ্ন পাওয়া যায়নি। এ বিষয়ে ঠিকাদার আমিনুল ইসলামের সঙ্গে একাধিকবার তাঁর মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করলেও তিনি ফোন রিসিভ না করায় বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।

স্থানীয় বাসিন্দা ও আল আমিন ফিলিং স্টেশনের মালিক রুহুল আমিন জানান, সড়কে কোনো কাজ চোখে পড়েনি। কাজের যে বরাদ্দ হয়েছে, তাও আমাদের জানা নেই। একই সড়কে প্রধানমন্ত্রীর বরাদ্দের পিএমপির ২২ কোটি ৪৫ লাখ টাকার কাজ পায় এমএনও জেভি নামের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। সিলেট—সুনামগঞ্জ সড়কের আল আমিন ফিলিং স্টেশন থেকে ডাবর পয়েন্ট পর্যন্ত (মাইলেজ পয়েন্ট ২৩ কিলোমিটার থেকে ৪৬ কিলোমিটার) কোনো কাজ হয়নি। অথচ ১২ কোটি ৫১ লাখ টাকার বিল পরিশোধ করা হয়েছে। গত ২৩ আগস্ট সওজ সিলেটের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী ফজলে রব বিলটি অনুমোদন করেন। কাজ না করলেও পেমেন্ট সার্টিফিকেটে সুনামগঞ্জের নির্বাহী প্রকৌশলী আশরাফুল ইসলাম প্রামাণিক কাজটি সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন হয়েছে বলে মতামত প্রদান করেছেন। সবচেয়ে বড় অনিয়ম হয়েছে প্রধানমন্ত্রীর অগ্রাধিকার বরাদ্দের মদনপুর—দিরাই রাস্তায়। পিএমপির এ কাজে ৩০ কোটি ৩৭ লাখ টাকা বরাদ্দ দেয় সওজ বিভাগ। কাজ পায় ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান মেসার্স সালেহ আহমদ ও কামরুল অ্যান্ড ব্রাদার্স জেভি। গত ১ জুন কার্যাদেশ পায় ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানটি। অথচ কাজ শুরু না করেই ১৮ দিনের মাথায় ১৯ জুন ৯ কোটি ৩৭ লাখ টাকা বিল পরিশোধ করে সওজ বিভাগ। বিলে সিলেট বিভাগের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী ফজলে রব, সুনামগঞ্জ নির্বাহী প্রকৌশলী আশরাফুল ইসলাম প্রামাণিক, উপ—বিভাগীয় প্রকৌশলী আশরাফুল হামিদ ও উপ—সহকারী প্রকৌশলী মোস্তাফিজুর রহমান স্বাক্ষর করেছেন। সর্বশেষ ২৪ আগস্ট সওজ ঢাকার তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলীও বাকি টাকা ছাড় দিয়েছেন। অথচ কার্যাদেশের চার মাসেও কোনো কাজ শুরু করেনি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানগুলো।

সুনামগঞ্জের আরেকটি বড় কাজ শান্তিগঞ্জ থেকে সুনামগঞ্জ ট্রাফিক পয়েন্ট পর্যন্ত ২৯ কোটি ৯৫ লাখ টাকার কাজ। রাস্তার এক পাশে হাওরের দিকে ‘ব্রিক টো ওয়ালসহ কংক্রিট স্লোপ প্রটেকশন’ নামে এ কাজের কার্যাদেশ হয় গেল জুন মাসে। কাজটি পায় একই ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান মেসার্স সালেহ আহমদ ও কামরুল অ্যান্ড ব্রাদার্স জেভি। স্থানীয় এমপি ও পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নানের এলাকা শান্তিগঞ্জ থেকে ট্রাফিক পয়েন্ট পর্যন্ত প্রটেকটিভ ওয়াল নির্মাণ করার কথা ছিল। সম্প্রতি সরেজমিন দেখা গেছে, দেখার হাওরের সাইনবোর্ডের পাশের এক কিলোমিটারেরও কম এলাকায় ওই ওয়াল নির্মাণ করা হয়েছে। অথচ বিল উত্তোলন করা হয়েছে ৯ কিলোমিটারের। যার পরিমাণ ১৭ কোটি ২৩ লাখ টাকা। কার্যাদেশের তিন সপ্তাহের মধ্যে গত ২০ জুন বিলে অনুমোদন করেন সংশ্লিষ্টরা। গত ২৪ আগস্ট পুরো টাকাও ছাড় দেয়া হয়েছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ঠিকাদার জানান, ভুয়া মেজারমেন্ট শিট দেখিয়ে বিল প্রস্তুত করা হয়েছে। অর্থবছরের শেষ সময়ের কারণে কাজ না করেই ঠিকাদারদের বিল দেয়া হয়েছে। এ জন্য তারা বাড়তি সুবিধা নিয়েছেন। কিছু প্রকল্প রয়েছে যেখানো কোনো কাজ আর করবে না ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানগুলো। তারা ম্যানেজ করে বিল নিয়ে গেছে।

কাজের বিল প্রস্তুতকারী সুনামগঞ্জ সওজের উপ—সহকারী প্রকৌশলী মো. মোস্তাফিজুর রহমান কথা বলতে রাজি হননি। তিনি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের পরামর্শে কাজ করেছেন বলে জানিয়েছেন। সুনামগঞ্জের নির্বাহী প্রকৌশলী আশরাফুল ইসলাম প্রামাণিক জানান, চার ভাগের এক ভাগ বিল দেওয়া হয়েছে। কাজ না করে পুরো বিল পরিশোধের বিষয়টি মানতে নারাজ তিনি। সরাসরি কথা বলতে চাইলে সময়ক্ষেপণ করে দেখা করতে চাননি ওই কর্মকর্তা। সুত্র: সমকাল।

সংবাদটি শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন