1. mdjoy.jnu@gmail.com : admin : Shah Zoy
  2. satvsunamgonj@gmail.com : Admin. :
বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১০:১২ পূর্বাহ্ন
  •                          

হাওরাঞ্চলের কথা ইপেপার

ব্রেকিং নিউজ
ভাষা শহীদের শ্রদ্ধাঞ্জলী অর্পন করেছে বৌদ্ধ যুব পরিষদ-সিলেট অঞ্চল তাহিরপুর এলাহী বক্স উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নিয়োগ প্রক্রিয়া বাতিল পূর্বক পূণ: নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের দাবী একুশের চেতনা হোক অবিনাশী সিলেটে বাস চাপায় ৬ পুলিশ সদস্যকে আহত হওয়ার ঘটনায় জড়িত ৩ আসামী গ্রেফতার সিলেট মহানগর ছাত্রলীগ নেতা মাহফুজ আহমেদ সামসুলের জন্মদিন পালিত সুনামগঞ্জ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি’র অপসারণের দাবী মানববন্ধন সিলেটের মোগলাবাজার থানা পুলিশ কর্তৃক ২ ছিনতাইকারী আটক সুনামগঞ্জের শ্রেষ্ঠ এসআই হলেন দোয়ারাবাজার থানার মোহাম্মদ আতিয়ার জামালগঞ্জে সরকারী কাজে বাধা দানের অভিযোগে এক যুবককে ৭ দিনের দন্ডাদেশ দিয়েছে ভ্রাম্যমান আদালত ধর্মপাশায় স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সদস্যের বিরুদ্ধে প্রধান শিক্ষিকার ইউএনও বরাবর লিখিত অভিযোগ

সিলেট সিটি করপোরেশনের ৮নং ওয়ার্ডের সেবক হতে চাই- কাউন্সিলর প্রার্থী জগদীশ

Reporter Name
  • আপডেট করা হয়েছে রবিবার, ৭ মে, ২০২৩
  • ২০৯ বার পড়া হয়েছে

দৈনিক হাওরাঞ্চলের কথা’র সাথে কাউন্সিলর প্রার্থী জগদীশ চন্দ্র দাসের একান্ত আলাপ: ২১ জুন ২০২৩ইং তারিখে সিলেট সিটি করপোরেশন নির্বাচন। এই নির্বাচনকে ঘিরে সম্ভাব্য প্রার্থীদের দৌড় ঝাপ শুরু হয়ে গেছে। ৮নং ওয়ার্ডে অন্তত এক ডজন কাউন্সিলর প্রার্থী প্রতিদিন উঠান বৈঠক ও ভোটারদের দ্বারে দ্বারে গিয়ে ভোট চাওয়ার মধ্য দিয়ে রাত দিন গণসংযোগে ব্যস্ত সময় পাড় করছেন। তাদের মধ্যে সবচেয়ে আলোচনায় রয়েছেন হেভিয়েট প্রার্থী জগদীশ চন্দ্র দাস। তিনি সিলেট পৌরসভার সাবেক কমিশনার ও সিলেট সিটি করপোরেশনের সাবেক দুইবারের কাউন্সিলর নির্বাচিত হয়েছিলেন। তিনি বর্তমানে সিলেট মহানগর আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন। বিগত নির্বাচনে সামান্য ভোটের ব্যবধানে পরাজিত হয়েছিলেন। এবার নির্বাচনে আসতে না চাইলেও স্থানীয় ভোটার ও সর্বস্তরের নেতাকর্মীদের অনুরোধে নির্বাচনে প্রার্থী হচ্ছেন। সে অনুযায়ী তিনি প্রতিটি ঘরে ঘরে যাচ্ছেন এবং সাধারন ভোটারদের মন জয় করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। ইতিমধ্যে ৮নং ওয়ার্ডের সর্বস্তরের জনতাকে সাথে নিয়ে মতবিনিময় সভায় সকলের সম্মতি পেয়ে প্রচার প্রচারনায় ব্যস্ত সময় পার করছেন। জীবনের শেষ সময়ে এসে ভোটারদের কাছে প্রত্যাশা ব্যক্ত করছেন যে, কাউন্সিলর হিসেবে নয়, সেবক হিসেবে ওয়ার্ডবাসীর পাশে থাকতে চান। নতুন প্রজন্মের ভোটারদের মন কাড়তে দিচ্ছেন নানান প্রতিশ্রæতি। ৮ নং ওয়ার্ডের পয়নিষ্কাশন, ড্রেনেজ ব্যবস্থা, কিশোর-কিশোরীদের খেলার  মাঠ, বেকার যুবক-যুবতীদের কর্মসংস্থানের লক্ষ্যে কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র স্থাপনের মাধ্যমে স্বাবলম্বী হিসেবে গড়ে তুলতে চান।  ভোটারদের কাছ থেকেও ভালো সাড়া পাচ্ছেন বলে তিনি জানিয়েছেন। দৈনিক হাওরাঞ্চলের কথা’র সাথে একান্ত আলাপকালে তিনি বলেন, আমি বাল্যকাল থেকে বঙ্গবন্ধুর আদর্শের রাজনীতির সাথে জড়িত। রাজনীতি করতে গিয়ে অনেকবার মৃত্যুর কাছ থেকে ফিরে এসেছি। আমি সাধারন মানুষের জন্য কাজ করি বলেই বার বার তারা আমাকে জনপ্রতিনিধি হিসেবে নির্বাচিত করেছেন। এবারও আশা করছি ৮নং ওয়ার্ডের সর্বস্তরের জনতা আমাকে বিপুল ভোটে কাউন্সিলর হিসেবে নির্বাচিত করবেন এবং তাদের সেবা করার সুযোগ দিবেন। কাজ করতে গিয়ে অতীতের অনেক ভুলত্রæুটি ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখে আমাকে জীবনের শেষবারের মত তাদের পাশে সেবক হিসেবে থাকার সুযোগ দিবেন। এ দিকে সাধারণ ভোটাররাও বলছেন, জগদীশ চন্দ্র দাসের মতো একজন অভিজ্ঞ জনপ্রতিনিধি দরকার। তার অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগে অবহেলিত ৮নং ওয়ার্ডের সার্বিক উন্নয়নে কাজ করার অনেক সুযোগ রয়েছে। বর্তমান ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগের সিনিয়র নেতা হওয়ায় সত্বেও তিনি সিটি করপোরেশনের ওয়ার্ড কাউন্সিলর হিসেবে প্রার্থী হওয়া আমাদের ৮নং ওয়ার্ডবাসীর গর্ব। আমরা তাকে স্বাগত জানাই।  ওয়ার্ড কাউন্সিলর হিসেবে এমন ব্যক্তিকে চাই যার দ্বারা গরীবের হক বিনষ্ট করবেন না এবং সকলের বিপদে আপদে এগিয়ে আসবেন। ঘুষ দুর্নীতি ও অনিয়ম থেকে দুরে  থাকবেন।

কাউন্সিলর প্রার্থী জগদীশ চন্দ্র দাস আরও জানান, আমি ছোটবেলা থেকেই ছাত্ররাজনীতির সাথে জড়িত। সিলেট জেলা ছাত্রলীগের স্টিয়ারিং কমিটির আহবায়ক, সিলেট জেলা যুবলীগের সভাপতি ও বর্তমানে সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতির দায়িত্ব পালন করছি।  আমি আগেও ৮ নং ওয়ার্ডের ২ বারের নির্বাচিত কাউন্সিলর ও একবারের সিলেট পৌরসভার কমিশনার হিসেবে মানুষের সেবা করেছি। আমি সব সময়  মানুষের বিপদে-আপদে পাশে ছিলাম। ভবিষ্যতেও পাশে থেকে কাজ করতে চাই।

আমি নির্বাচিত হলে এই ওয়ার্ডকে একটি মডেল ওয়ার্ড হিসেবে গড়ে তুলব। সারা দেশে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ম শেখ হাসিনার উন্নয়নের যে জোয়ার বইছে সেই জোয়ারে সাথে ৮ নং ওয়ার্ডকেও এগিয়ে নিতে চাই। যদি ৮ নং ওয়ার্ডবাসী আমাকে জীবনের শেষ বারের মত সুযোগ করে দেন এবং আমি কাউন্সিলর হিসেবে পুনরায় নির্বাচিত হতে পারি তাহলে সর্বাগ্রে ৮নং ওয়ার্ডের বীরেশ চন্দ্র উচ্চ বিদ্যালয়টিকে কলেজে উন্নীত করব এবং সকলের মতামতের ভিত্তিতে সুবিধাজনক স্থানে খেলার মাঠ করব। বেকার যুবক-যুবতীদের কর্র্মসংস্থানের লক্ষ্যে প্রশিক্ষন সেন্টার গড়ে তোলা হবে এবং রাস্তাঘাট ব্রিজ কালভার্ট নির্মানে অগ্রনী ভুমিকা রাখব। ৮নং ওয়ার্ডের কোন ভোটার যেন অন্যায়ের শিকার না হয় সেদিকে নজর দেয়া হবে। ন্যায় বিচার নিশ্চিত করতে সকলের মতামতের ভিত্তিতে কাজ করে যাব।

ভাটি অঞ্চলের প্রতিটি মানুষের সাথে আমার আত্মার সর্ম্পক রয়েছে। অনেকেই মনে করেন আমার গ্রামের বাড়ী সুনামগঞ্জের ভাটি এলাকায়। আমি জাতীয় নেতা মরহুম আব্দুস সামাদ আজাদ ও বাবু সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের সাথে রাজনীতি করেছি। তারা আমার গুরুজন। তাদের কাছ থেকেই রাজনীতি শিখেছি। তাই ভাটি অঞ্চলের প্রতিটি মানুষ আমার আত্মার আত্মীয় বলেও আমি  মনে করি। আমি এই ওয়ার্ডকে একটি আধুনিক,স্মার্ট ওয়ার্ড হিসেবে গড়ে তুলতে চাই। আমি ওয়ার্ডের কাউন্সিলর হতে নয়, ওয়ার্ডবাসীর সেবক হতে চাই।

সংবাদটি শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন