1. mdjoy.jnu@gmail.com : admin : Shah Zoy
  2. stvsunamgonj@gmail.com : Admin. :
সোমবার, ০৪ জুলাই ২০২২, ০৩:০৫ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থদের মধ্যে নগদ অর্থ বিতরণ বন্যার্থদের পাশে সিলেট বিল্ডাস ও শামীমাবাদ যুব সমাজ দি ডেইলী বাংলাদেশ টুডে পরিবারের অর্থায়নে ছাতকে বন্যার্তদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ ফতেপুরে বন্যার্তদের মাঝে বিশ্বাস বিল্ডার্স লিমিটেডের খাবার ও কাপড় বিতরণ বন্যায় কবলিত মানুষের পাশে কর্ম সেবা সংস্থা কোস্ট গার্ডের সহায়তায় নতুন জীবন পেল আলীপুরের গৃহবধু হোসনে আরা সুনামগঞ্জে বন্যার্তদের মাঝে বাংলাদেশ কোস্ট গার্ড এর ত্রাণ বিতরণ সুনামগঞ্জে ত্রাণ বিতরণ করছেন ঢাকা দক্ষিনের আ’লীগ নেতা শেখ মো: আজাহার বন্যায় মোকাবেলায় জনপ্রতিনিধি গ্রামবাসী, প্রশাসন ও পুলিশ একসাথে কাজ করতে হবে- বেনজির আহমদ ভয়াবহ বন্যায় র‌্যাব মানুষের পাশে ছিল পাশে থাকবে- ডিজি চৌধুরী আব্দুল্লাহ আল মামুন

শান্তিগঞ্জে পুলিশি নির্যাতনে উজির মিয়ার মৃত্যুর অভিযোগে তদন্ত কমিটি গঠন

শান্তিগঞ্জ প্রতিনিধি::
  • আপডেট করা হয়েছে মঙ্গলবার, ২২ ফেব্রুয়ারী, ২০২২
  • ৫৭ বার পড়া হয়েছে
সুনামগঞ্জের শান্তিগঞ্জ উপজেলায় পুলিশি নির্যাতনে উজির মিয়ার মৃত্যুর অভিযোগে পৃথক দুটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। একটি করেছে জেলা প্রশাসন, আরেকটি পুলিশ।
এদিকে মৃত উজির মিয়ার লাশের ময়নাতদন্ত মঙ্গলবার সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে সম্পন্ন হয়েছে। বেলা ৩টায় শান্তিগঞ্জ উপজেলার পাগলা উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে জানাজা শেষে তার লাশ দাফন করা হয়।
উজির মিয়ার মৃত্যুর ঘটনার জড়িত পুলিশ সদস্যদের আইনের আওতায় আনার দাবিতে গতকাল সোমবার দুপুরে শান্তিগঞ্জ উপজেলার পাগালাবাজার এলাকায় সড়কের ওপর লাশ রেখে কয়েক হাজার মানুষ তিন ঘণ্টা সুনামগঞ্জ-সিলেট সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেন।
পারিবারের পক্ষ থেকে অভিযোগ, উজির মিয়ার বাড়ি শান্তিগঞ্জ উপজেলার পশ্চিমপাগলা ইউনিয়নের শত্রুমর্দন গ্রামে। তিনি ছোটখাটো ব্যবসা করেন। গত ৯ ফেব্রুয়ারি গভীর রাতে বাড়ি থেকে উজির মিয়াকে ধরে নিয়ে যায় শান্তিগঞ্জ থানার কয়েকজন পুলিশ। তাকে থানায় নিয়ে ব্যাপক নির্যাতন করা হয়। পরিদন তাকে একটি চুরির মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে আদালতে পাঠায়। ওই দিনই আদালত থেকে উজির মিয়াকে তারা জামিনে মুক্ত করে নিয়ে আসেন। বাড়িতে নিয়ে আসার পর উজির মিয়ার পুরো শরীরে নির্যাতনের চিহ্ন দেখতে পান তারা। এরপর উজির মিয়া গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।
সেখানে পাঁচ দিন চিকিৎসার পর কিছুটা সুস্থ হলে তাকে আবার বাড়িতে নিয়ে আসা হয়। সোমবার সকালে তিনি আবার অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট চিকিৎসক তদন্তাধীন অবস্থায় মন্তব্য দিতে অপারগতা জানান।
সুনামগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবু সাঈদ বলেন, আমরা ঘটনার তদন্তে কাজ করছি।
জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে পৃথক তদন্ত কমিটি গঠনের বিষয়টি নিশ্চিত করেন সুনামগঞ্জের জেলা প্রশাসক মো. জাহাঙ্গীর হোসেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন