1. mdjoy.jnu@gmail.com : admin : Shah Zoy
  2. stvsunamgonj@gmail.com : Admin. :
সোমবার, ০৪ জুলাই ২০২২, ০৩:০৬ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থদের মধ্যে নগদ অর্থ বিতরণ বন্যার্থদের পাশে সিলেট বিল্ডাস ও শামীমাবাদ যুব সমাজ দি ডেইলী বাংলাদেশ টুডে পরিবারের অর্থায়নে ছাতকে বন্যার্তদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ ফতেপুরে বন্যার্তদের মাঝে বিশ্বাস বিল্ডার্স লিমিটেডের খাবার ও কাপড় বিতরণ বন্যায় কবলিত মানুষের পাশে কর্ম সেবা সংস্থা কোস্ট গার্ডের সহায়তায় নতুন জীবন পেল আলীপুরের গৃহবধু হোসনে আরা সুনামগঞ্জে বন্যার্তদের মাঝে বাংলাদেশ কোস্ট গার্ড এর ত্রাণ বিতরণ সুনামগঞ্জে ত্রাণ বিতরণ করছেন ঢাকা দক্ষিনের আ’লীগ নেতা শেখ মো: আজাহার বন্যায় মোকাবেলায় জনপ্রতিনিধি গ্রামবাসী, প্রশাসন ও পুলিশ একসাথে কাজ করতে হবে- বেনজির আহমদ ভয়াবহ বন্যায় র‌্যাব মানুষের পাশে ছিল পাশে থাকবে- ডিজি চৌধুরী আব্দুল্লাহ আল মামুন

রিসিট এডিট করে জাগো নিউজে চেয়ারম্যান রেজা’র বিরুদ্ধে মিথ্যা সংবাদ প্রকাশ

স্টাফ রিপোর্টার
  • আপডেট করা হয়েছে বৃহস্পতিবার, ১০ মার্চ, ২০২২
  • ৬৫০ বার পড়া হয়েছে

সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার সুরমা ইউনিয়নের বিপুল ভোটে নির্বাচিত চেয়ারম্যান আমির হোসেন রেজার বিরুদ্ধে মিথ্যা ও ভিত্তিহীন সংবাদ প্রকাশ করায় পুশে উঠছে সাধারন মানুষ।

জানা যায়, গত ৯ মার্চ ২০২২ইং সকাল ৯টা ১৫ মিনিটে অনলাইন নিউজ পোর্টাল ‘জাগো নিউজ ২৪.কম’ এ সুরমা ইউপি চেয়ারম্যান রেজাকে জড়িয়ে মিথ্যা ও কাল্পনিক তথ্য উপস্থাপন করে একটি ফরমায়েশি সংবাদ প্রকাশ ও প্রচারিত করা হয়েছে। যা সম্পূর্ন মিথ্যা ও ভিত্তিহীন, পুরাতন রিসিটকে এডিট করে প্রচার করা হয়েছে। এ ধরনের চাদাবাজীর সাথে ইউনিয়ন পরিষদ কিংবা পরিষদের চেয়ারম্যান ত দুরের কথা কোন সদস্যও জড়িত নহে। সংবাদে উল্লেখ করা হয়েছে গত তিন মাস ধরে সুরমা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আমির হোসেন রেজা’র নেতৃত্বে নৌপথে চাঁদাবাজির অভিযোগ পাওয়া গেছে। অথচ গত ৪ঠা জানুয়ারী তারিখে সুরমা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হিসেবে শপথ গ্রহন করেন। সংবাদে আরও উল্লেখ করা হয়েছে ‘নৌ শ্রমিকদের অভিযোগ, গত তিনমাস ধরে সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার সুরমা ইউনিয়নের হালুয়ার ঘাট, বিরামপুর, মঈনপুর তিনটি জায়গা থেকে সরকারের রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে এবং কোনো ধরনের ইজারা ছাড়া প্রতিদিন পাড়ে থাকা ৩০ থেকে ৩৫টি ছোট-বড় নৌকা, কার্গো, ট্রলার, বাল্কহেড থেকে চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে চাঁদা তোলা হচ্ছে। যারা চাঁদা দিতে অস্বীকার করছেন তাদের চড়-থাপ্পড় মেরে লাঞ্ছিত করা হচ্ছে। সঙ্গে থাকা মোবাইল ফোন কিংবা নৌযানে থাকা গুরুত্বপূর্ণ জিনিসপত্র নিয়ে চাঁদাবাজরা চলে যান।’ যা সম্পূর্ণ মিথ্যা ও কাল্পনিক তথ্য উপস্থাপন করা হয়েছে। চাঁদা আদায়ের যে রশিদ সংবাদে সংযোজন করা হয়েছে তাও এডিট করে অর্থাৎ মামা দা রুমান নামক রিসিটে ২৫/০২/২০ এর স্থলে অতিরিক্ত /২২ এবং একই তারিখে সাইনর নামক রিসিটে ২৫/০২/২০ এর সাথে / ২২ লাগিয়ে সম্প্রতির চাঁদাবাজির ঘটনা প্রমান করতে চেয়েছেন। সত্যিকার অর্থে আগের চেয়ারম্যান লায়েছ মিয়াকে কালেক্টর হিসেবে নিয়োগ প্রদান করলেও পরে তা পরে বাতিল করা হয়েছিল। গত দুই/তিন বছর ধরে ধোপাজান চলতি নদীটি কোন ধরনের ইজারা বন্দোবস্ত দিচ্ছে না সরকার। এখানে কোন ধরনের মালামালও পরিবহন করা হচ্ছে না। অথচ জেলা ও পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকে ধোপাজান চলতি নদী ও সুরমা নদীতে চাঁদাবাজী জিরো টলারেন্স দেখানো হচ্ছে। গেল ইউপি নির্বাচনে যারা চেয়ারম্যান রেজার সাথে জামানত হারিয়েছিল তাদের উস্কানি ও ইন্দনে কিছু গণমাধ্যমকর্মী  মিথ্যা তথ্য দিয়ে অপসংবাদ প্রচার ও প্রকাশ করছেন। এসব সংবাদের কোন ভিত্তি নেই। মিথ্যা তথ্য উপস্থাপন করে সংবাদ প্রচার ও প্রকাশ করায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে তাদের বিরুদ্ধে যথাযথ আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হচ্ছে। অনলাইন নিউজ পোর্টালে চেয়ারম্যান রেজার ছবি কাটসাট করে সংযোজনের মাধ্যমে ফৌজদারী অপরাধ করা হয়েছে। প্রতিবেদনে আরও উল্লেখ করা হয় যে, সরেজমিন সুরমা ইউনিয়নের হালুয়ার ঘাট, বিরামপুর ও মঈনপুর নদীর পাড়ে গিয়ে দেখা যায়, চেয়ারম্যান আমির হোসেন রেজার নেতৃত্বে জাহিদুর, শিপনসহ ১০ জন যুবক এই তিন পয়েন্টে এবং নদীর পাড়ে থাকা ইঞ্জিনচালিত নৌকা, ট্রলার, কার্গো ও বাল্কহেডে গিয়ে দেড় হাজার থেকে দুই হাজার টাকা করে চাঁদা দাবি করছেন’। যা সম্পূর্ন মিথ্যা ও উদ্দেশ্য প্রনোদিত। চেয়ারম্যান সাহেবের উপস্থিতির কোন তথ্য প্রমাণ চিত্র সংযোগ করে মিথ্যা সংবাদ প্রকাশ করা হয়েছে। নৌ যানে চাঁদাবাজীতে যাদের নাম উল্লেখ করা হয়েছে তাদের সাথে আমার কোন যোগাযোগ নেই। নৌ পথে কোন স্থান থেকে চাদাবাজির নির্দেশনাও দেই নাই। এ ছাড়াও ইব্রাহিমপুর গ্রামের কিছু সাধারন মানুষকে উস্কে দিয়ে অভিযোগ করানো হচ্ছে। প্রকৃত পক্ষে রেজা চেয়ারম্যান কিংবা তার ভাই স্বজনরা কাহারো কোন জমি জমা দখল করেন নাই কিংবা কাহাকেও ভয়ভীতি প্রদর্শন করি নাই। কুচক্রি মহলের ইন্দনে ভুমিহীনদের দিয়ে  মানববন্ধন করে আমার সম্মান হানি ঘটানোর চেষ্টা করছে।

সুরমা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আমির হোসেন রেজা বলেন, বিগত নির্বাচনে যারা আমার সাথে প্রতিদ্বন্ধিতা করে বিপুল ভোটে পরাজিত হয়ে জামানত হারিয়েছেন তারাই আমার মান সম্মান বিনষ্ট করার পায়তারা করছেন। আমি এ অপসাংবাদের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। সেই সাথে যথাযথ আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন গ্রহনের প্রক্রিয়া গ্রহন করছি।  আমার সুরমা ইউনিয়নের নৌ পথে কোথাও কোন চাঁদাবাজীর সুযোগ নেই।

সংবাদটি শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন