1. mdjoy.jnu@gmail.com : admin : Shah Zoy
  2. satvsunamgonj@gmail.com : Admin. :
রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ১০:৫৬ অপরাহ্ন
  •                          

হাওরাঞ্চলের কথা ইপেপার

ব্রেকিং নিউজ
বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে জেলা পুলিশের পান্তা উৎসব পালিত সুনামগঞ্জে একুশে টেলিভিশনের ২৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত সিলেট ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে চুরি হয়ে যাওয়া পাসপোর্ট ও মোবাইল উদ্ধার করে দিলেন এপিবিএন টিম সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে মিথ্যা অপপ্রচার দোয়ারাবাজারে মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের মানহানির অভিযোগে মামলা দায়ের গোলাপগঞ্জের বিশিষ্ট সমাজসেবক ফরিজ আলীকে জড়িয়ে প্রকাশিত মিথ্যা সংবাদের নিন্দা ও প্রতিবাদ সুনামগঞ্জে মাদ্রাসার শিক্ষার্থীদের মধ্যে কোরআন শরিফ বিতরণ বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতি নির্বাচনে সিলেটের বিজয়ী হয়েছেন দুইজন  দিরাইয়ে দোকান থেকে ৬০ বস্তা সরকারি চাল উদ্ধার সিলেট মহানগরীর আলমপুর থেকে ১০ জুয়াড়ীকে আটক করে জেল হাজতে প্রেরণ করেছে এসএমপি ডিবি পুলিশ সাংবাদিক পারভেজের মায়ের সু—চিকিৎসার জন্য মেডিকেল বোর্ড গঠন করা হয়েছে —এমপি নাদেল

যুক্তরাজ্যে অভিবাসনপ্রত্যাশীর আবেদন ২ দশকের সর্বোচ্চ : তালিকায় ৫ম বাংলাদেশ

Reporter Name
  • আপডেট করা হয়েছে শনিবার, ২৬ আগস্ট, ২০২৩
  • ৭২ বার পড়া হয়েছে

নিউজ ডেস্কঃ বৃটেনে অভিবাসনের জন্য চলতি বছর সর্বোচ্চ সংখ্যক অভিবাসনপ্রত্যাশীর আবেদন জমা পড়েছে। যা গত দুই দশকের মধ্যে সর্বোচ্চ বলে জানা গেছে। দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পরিসংখ্যান বলছে, যুক্তরাজ্যে আশ্রয়ের আবেদন গেল বছরের তুলনায় চলতি বছরে ৫৭ শতাংশ বেশি জমা পড়ে। যা কিনা এযাবৎ কালের সর্বোচ্চ রেকর্ড।যুদ্ধ বিধ্বস্ত ইরাক সিরিয়ার চেয়ে বেশিসংখ্যক মানুষ শরণার্থী হিসাবে ব্রিটেনে আশ্রয় প্রার্থনা করেছেন। আশ্রয় প্রার্থীর তালিকায় বাংলাদেশের অবস্থান এখন পঞ্চম।

পরিসংখ্যানে অনুযায়ী, চলতি বছরের জুনের শেষ নাগাদ পর্যন্ত ১ লাখ ৭৫ হাজার আবেদন পড়েছে। শরণার্থী মর্যাদা দেওয়া হবে কি না, সে বিষয়ে সিদ্ধান্তের জন্য অপেক্ষায় রয়েছে তারা। এই সংখ্যা গত বছরের তুলনায় ৫৭ শতাংশ বেশি। গত বছর একই সময় আবেদন পড়েছিল ১ লাখ ২২ হাজার ২১৩টি।২০১০ সাল থেকে অভিবাসন প্রত্যাশীদের রেকর্ড রাখা হচ্ছে। চলতি বছর শরণার্থী সংখ্যা অতীতের সব রেকর্ড ভেঙে ফেলেছে। সাধারণ ভাবে, একজন অভিবাসনপ্রত্যাশীর আবেদনের বিষয়ে প্রাথমিক সিদ্ধান্ত আসতে কমপক্ষে ৬ মাস অপেক্ষা করতে হয়। সেখানে জুনের শেষ নাগাদ পর্যন্ত এমন অপেক্ষমাণ রয়েছে ১ লাখ ৩৯ হাজার ৯৬১টি আবেদন।পরিসংখ্যানে আরও দেখা গেছে, চলতি বছরের জুনে শেষ হওয়া হিসাব বছরে ৭৮ হাজার ৭৬৮টি শরণার্থী হিসেবে আশ্রয়ের আবেদন পড়েছে। আবেদনের বিপরীতে লোকের সংখ্যা ৯৭ হাজার ৩৯০। গত বছরের তুলনায় এটি ১৯ শতাংশ বেশি, আর দুই দশকের মধ্যে সর্বোচ্চ। এর মধ্যে ব্রিটেনে আশ্রয়প্রার্থীদের মধ্যে সর্বোচ্চসংখ্যক রয়েছেন আলবেনিয়ার নাগরিক।

এই দেশের নাগরিকদের কাছ থেকে ১১ হাজার ৭৯০টি আবেদন পড়েছে, যাদের মধ্যে ৭ হাজার ৫৫৭ জনই এসেছেন নৌকায়। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ অবস্থানে আছেন আফগানরা। আফগানদের পক্ষ থেকে আবেদন জমা পড়েছে ৯ হাজার ৯৬৪টি। এর আগের ১২ মাসের তুলনায় এটি দ্বিগুণ। এরপরই আছে যথাক্রমে ইরানি ৭ হাজার ৭৭৬ জন, ভারতীয় ৪ হাজার ৪০৩, বাংলাদেশি ৩ হাজার ৬২২, ইরাকি ৩ হাজার ৪৭২ জন এবং সিরীয় ৩ হাজার ৪২২ জন। অথচ, ২০২১ সালের পরিসংখ্যান অনুযায়ী আশ্রয় প্রার্থীর তালিকার শীর্ষে ছিল ইরান, ইরাক, ইরিত্রিয়া, আলবেনিয়া ও সিরিয়া।নৌকায় আসার ক্ষেত্রে রেকর্ড ব্রেক করছে আলবেনীয় নাগরিকগণ। ২০২০ সালে তাদের সংখ্যা ছিল মাত্র ৫০ জন, ২০২১ সালে আসে ৮০০ জন এবং ২০২২ সালে সেই সংখ্যা এসে দাঁড়ায় ১২ হাজার ৩০১ জন। তবে এই তালিকায় রাখা হয়নি ইউক্রেনকে।ইউক্রেন রাশিয়া যুদ্ধ শুরু হওয়ার পর, বিশেষ সুবিধায় ২০২৩ সালের আগস্ট পর্যন্ত ২ লাখ ৩৭ হাজার দুইশত ভিসা ইস্যু করা হয়েছে ইউক্রেনের জন্য এবং ১ লাখ ৮৩ হাজার ৬শ জন বর্তমানে ব্রিটেনে বসবাস করছেন। আফগানিস্তানের ক্ষেত্রেও এই বিশেষ সুবিধা রয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী ঋষি সুনাক গত বছরের শেষ নাগাদ তথাকথিত আইনি জটিলতা ও দীর্ঘসূত্রতা নিরসনের লক্ষ্য ঘোষণা করেছিলেন। অভিবাসন প্রত্যাশীদের বহনকারী নৌকাগুলো ব্রিটেনের সীমানায় প্রবেশের আগেই প্রতিরোধ করার প্রত্যয়ও জানিয়েছেন ঋষি সুনাক। কিন্ত সেই স্রোত কোনভাবেই থামানো যাচ্ছে না। যদিও ২০২২ সালে ৩৮ হাজার আশ্রয়প্রার্থীদের নিজ নিজ দেশে ফেরত পাঠিয়েছে ইংল্যান্ড।বাংলাদেশি আশ্রয় প্রার্থীদের মাঝে নৌকায় আসা শরণার্থীর সংখ্যা নাই বললেই চলে। এদের বেশীরভাগই বিভিন্ন ভিসায় ব্রিটেনে এসে ভিসার মেয়াদ শেষ হওয়ার পর অথবা ভিসা থাকা অবস্থায়ই এই আশ্রয় প্রার্থনা করেছেন। যার অধিকাংশই স্টুডেন্ট ভিসা বা কেয়ারার ভিসায় ব্রিটেনে এসেছেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন