1. mdjoy.jnu@gmail.com : admin : Shah Zoy
  2. stvsunamgonj@gmail.com : Admin. :
সোমবার, ২৩ মে ২০২২, ১০:১৮ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ

মৌলভীবাজারে বাড়িতে ঢুকে নারীসহ ২জনকে কুপিয়ে গুরুতর জখমের ঘটনায় আদালতে মামলা দায়ের

Reporter Name
  • আপডেট করা হয়েছে রবিবার, ১৬ জানুয়ারী, ২০২২
  • ৭০২ বার পড়া হয়েছে

 

মৌলভীবাজার প্রতিনিধিঃমৌলভীবাজার জেলা ক্রীড়া সংস্থার সদস্য ও বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড(বিসিসি)কোচ ক্রিকেটার রাসেল আহমদ ও তার সাঙ্গ-পাঙ্গরা এক কৃষকের বাড়িতে ঢুকে নারীসহ ২জনকে  কুপিয়ে জখমের ঘটনায় রাসেলসহ ৫জনের  নাম উল্লেখ করে আদালতে মামলা দায়ের করেছে। ঘটনাটি ঘটে রাজনগর উপজেলার বক্সিকোনা গ্রামে। মামলা ও স্থানীয় সুত্র জানায়, ক্রিকেট কোচ রাসেলের নেতৃত্বে  লোহার রড ও জিআইপাইপ দিয়ে পিটিয়ে মাথায় গুরুতর জখম করার  অভিযোগ এনে ক্রিকেটার রাসেল আহমদকে প্রধান আসামী করে মৌলভীবাজারের জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ৪ নং আমল আদালতে মামলা দায়ের করেছে ভূক্তভোগীর পরিবার। মামলা নং সিআর-০৫/২০২২। মামলার বিবরণে জানা যায়,মৌলভীবাজার জেলার রাজনগর উপজেলার ৮নং মনসুরনগর ইউনিয়ন পরিষদের ৬ নং ওয়ার্ডের অর্ন্তগত বক্সিকোনা গ্রামে রাসেলের চাচা আব্দুল আজিজ ও জব্বার মিয়ার মহিষ দিয়ে পাশের বাড়ির সোনা মিয়ার বোরো ধানের অপরিণত হালি চারা খাওয়ালে এ নিয়ে গত ৮ জানুয়ারি শনিবার সকাল ৮টার দিকে বাকবিতন্ডা হয় আজিজ গং ও সোনা মিয়ার মধ্যে। এরপর স্থানীয় লোকজনের মধ্যস্থতায় সোনা মিয়া নিজের বাড়িতে ফিরে যায়। সোনা মিয়ার সঙ্গে কিকেটার রাসেলের চাচা আজিজ ও জব্বারের ঝগড়ারার খবর মোবাইল ফোনে রাসেলকে জানালে রাসেল তার ভাই ও অন্যান্যদের সঙ্গে নিয়ে গ্রামের বাড়িতে যায়। সকাল ১০টার দিকে রাসেলের নেতৃত্বে তারা সঙ্গবদ্ধ হয়ে দা,রড,লাঠি ও জিআই পাইপসহ সোনা মিয়ার বাড়িতে এসে সোনা মিয়াকে ডেকে ঘর থেকে বের করে আনে। সোনা মিয়া কিছু বুঝে উঠার আগেই তার বাড়ির উঠানে রাসেল গংরা সোনা মিয়াকে বেধড়ক পিঠিয়ে আহত করে। ঘটনার এক পর্যায়ে রাসেলের হাতে থাকা দা দিয়ে সোনা মিয়ার মাথায় কুপ দেয়। রাসেলের দায়ের কূপে সোনা মিয়া রক্তাক্ত জখম হয়। এ সময় মামলার বাদীর ভাই আব্দুল কাইয়ূমকে লোহার রড ও জিআইপাই দিয়ে পিটিয়ে গুরুতর আহত করে। স্থানীয়দের সহায়তায় তাকে প্রথমে রাজনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রের জরুরি বিভাগে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে উন্নত চিকিৎসার জন্য ২৫০ শয্যা মৌলভীবাজার হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। এই হাসপাতালের জরুরি বিভাগে মাথার ক্ষত স্থানে কয়েকটি সেলাই দিয়ে ওই হাসপাতালের সার্জারি বিভাগে ভর্তি করা হয় কৃষক সোনা মিয়াকে। এ ঘটনার পর রাসেল ও তার সাঙ্গপাঙ্গরা দুপুর ১টার দিকে সোনা মিয়ার বাড়িতে গিয়ে তার ছেলে কাইয়ূমকে খোঁজে বের করে দেয়ার জন্য কাইয়ূমের চাচি খেলা বেগমকে চাপ সৃষ্টি করে। খেলা বেগম কাইয়ূমের অবস্থানের খবর দিতে অস্বীকার করলে রাসেলের হাতে থাকা দা দিয়ে খেলা বেগমের মাথায় কূপ দেয়। দায়ের ক’পে খেলা বেগমের মাথায় রক্তাক্ত জখম হলে তাকেও রাজনগর স্বাস্থ্য কেন্দ্রে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে উন্নত চিকিৎসার জন্য ২৫০ শয্যা মৌলভীবাজার হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে তিনি ঘটনার দিন থেকে ১০ জানুয়ারি পর্যন্ত চিকিৎসাধীন ছিলেন। এ ঘটনার পর থেকে মোটরসাইকেলসহ সন্ত্রাসীরা প্রকাশ্যে মহড়া দিয়ে ভূক্তভোগি পারবারকে নানা ভাবে হুমকি দিচ্ছে। এ ঘটনায় ১৩ জানুয়ারি বৃহস্পতিবার মৌলভীবাজারের জুডিসিয়াল ম্যাজিস্টেট আদালতে আহত সোনা মিয়ার মেয়ে শেফালী বেগম বাদী হয়ে রাসেরসহ ৬জনের নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাতনামা আরো ৪/৫জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছেন। মামলায় রাসেলকে প্রধান আসামী করা হয় এবং তার চাচা আব্দুল আজিজ,আব্দুল জব্বার,চাচাতো ভাই আব্দুল কাইয়ূম ছায়েম,জাবেদ, এমদাদসহ ৫জনের নাম উল্লেখ করা হয়। মামলাটি তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের জন্য আদালত রাজনগর থানার ওসিকে নির্দেশ দিয়েছেন। জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে দায়েরকৃত মামলার আর্জিতে কৃষক সোনা মিয়ার একমাত্র কন্যা শেফালী বেগম অভিযোগ করেন রাজনগর উপজেলার বক্সিকোনা গ্রামের লন্ডন প্রবাসী আব্দুল মন্নানের দ্বিতীয় পত্র রাসেল আহমদ মৌলভীবাজার পৌরসভা এলাকার ৩ নং ওয়ার্ডের বনবিথী এলাকায় নিজের বাসায় বসবাস করলেও ঘটনার দিন ৮ জানুয়ারি তিনি বাড়িতে ছিলেন। বারবার যোগাযোগ করে রাসেলের বক্তব্য জানতে চাইলে মোবাইল বন্ধ থাকায় বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।

সংবাদটি শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন