1. mdjoy.jnu@gmail.com : admin : Shah Zoy
  2. satvsunamgonj@gmail.com : Admin. :
শুক্রবার, ১৪ জুন ২০২৪, ০১:৪৪ পূর্বাহ্ন
  •                          

হাওরাঞ্চলের কথা ইপেপার

ব্রেকিং নিউজ
চরমহল্লা আইডিয়াল স্কুলের ১০৯ জন শিক্ষার্থীকে রক্তের গ্রুপ জানিয়ে দিয়েছে বাঁধন সুনামগঞ্জ সদরের টুকের বাজার ব্যবসায়ী সমিতির কমিটি সম্পূর্ণ সিসিকে মেয়র প্রার্থী হওয়া মোশতাক গ্রেফতার শিক্ষায় পিছিয়ে পড়া চা শ্রমিক সন্তানদের মূল ধারায় ফিরিয়ে আনতে কাজ করছে এফআইভিডিবি সুনামগঞ্জে ভাবীকে কুপিয়ে হত্যার ‍নায়ক আইনুলকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ সহিংসতা করে কেউ পার পাবে না : ইসি আলমগীর তৃতীয় ধাপে দেশের ৮৭ উপজেলায় ভোটগ্রহণ কাল গাজায় মানবাধিকার লঙ্ঘন নিয়ে ডয়েচে ভেলেকে তথ্যচিত্র তৈরির আহ্বান তথ্য প্রতিমন্ত্রীর স্ত্রী-সন্তানসহ বেনজীরকে দুদকে তলব ক্রিকেট: যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে বাংলাদেশের প্রস্তুতি ম্যাচ বাতিল

বিশ্বম্ভরপুরে প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে অনিয়ম, দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে

Reporter Name
  • আপডেট করা হয়েছে শনিবার, ২৬ আগস্ট, ২০২৩
  • ১১৩ বার পড়া হয়েছে

নিউজ ডেস্কঃ বিশ্বম্ভরপুরে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুস সাত্তার আজাদের বিরুদ্ধে অনিয়ম, দুর্নীতি ও নির্ধারিত সময়ে বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত থাকার অভিযোগ উঠেছে। গত বৃহস্পতিবার (২৪ আগস্ট) দুপুরে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তার নিকট এ বিষয়ে একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন অত্র বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি সোহেল আহমদ সাজু। আব্দুস সাত্তার আজাদ বাদাঘাট দক্ষিণ ইউনিয়নের ‘সিরাজপুর বাগগাওঁ’ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক পদে তিনি কর্মরত।

জানা যায়, সরকারের নিয়ম নীতি তোয়াক্কা না করে বিদ্যালয়ে যোগদানের পর থেকেই নির্ধারিত সময়ে অনুপস্থিত থাকেন তিনি। নিজের ইচ্ছে মতে দুপুর ১২টার দিকে বিদ্যালয়ে এসে হাজিরা খাতায় স্বাক্ষর করে ক্লাস না করেই আবার তিনি চলে যান উপজেলাতে। এছাড়াও বিদ্যালয়ের হিসাব চাওয়া, বই বিক্রি করা, মাসিক সভা না করা, কাব কার্যক্রম না হওয়া, সরকারি বিভিন্ন দিবস পালন না করা, মা ও অভিভাবক সমাবেশ না করা সহ বিভিন্ন অনিয়ম দূর্নীতির অভিযোগ উঠেছে তার বিরুদ্ধে।

তিনি নির্ধারিত সময়ে বিদ্যালয়ে না আসায় এখানকার শিক্ষা ব্যবস্থা এখন ধ্বংসের মুখে। আর এসব অনিয়মের বিষয়ে প্রতিবাদ করায় তিনি সম্প্রতি বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতির সঙ্গে খারাপ আচরণও করেছেন।

সাম্প্রতিক উপজেলা শিক্ষা অফিসের নিদের্শনা মতে প্রতিদিন সকাল ৮টা ৫০ মিনিটের মধ্যে সকল সহকারী শিক্ষকরা এক সঙ্গে সেলফি দেওয়ার কথা থাকলেও প্রধান শিক্ষক যথা সময়ে বিদ্যালয়ে উপস্থিত না হওয়ায় সহকারী শিক্ষকরা নিয়মিত সেলফি দিতে পারছেন না। সম্প্রতি সকাল ৯টার দিকে বিদ্যালয়ের এক শিক্ষক তার নিজ ফেসবুক আইডিতে সকল সহকারী শিক্ষকদের একটি গ্রুপ ছবি আপলোড করেন। এতে দেখা যায় গ্রুপ ছবিতে সহকারী শিক্ষকরা উপস্থিত তাকলেও প্রধান শিক্ষক গ্রুপ ছবিতে নেই। পরে তাৎক্ষণিক খোঁজ নিয়ে জানা যায় তিনি উপজেলা সদরে আছেন। নির্ধারিত সময়ে বিদ্যালয়ে উপস্থিত হওয়ার প্রয়োজন মনে করেননি তিনি।

এক অভিভাবক সদস্য জানান, প্রধান শিক্ষক অনুপস্থিত থাকার সময় দায়িত্বে কেউ থাকেন না। তার অনুপস্থিতিতে বিদ্যালয়ে পাঠদান মারাত্মক ব্যাঘাত ঘটছে। তিনি প্রায়ই সময় বিভিন্ন অজুহাত দেখিয়ে স্কুলে না এসে উপজেলা সদরে থাকেন।

বৃহস্পতিবার বিদ্যালয়ে গিয়ে দেখা যায়, ক্লাস রুটিন নোটিশ বোর্ডে লাগানো আছে ‘ক্লাস হচ্ছে না নিয়মিত’। এক- দুইটা ক্লাস করে নির্ধারিত সময়ের আগেই যে -যার মত চলে যান। বিদ্যালয়ের এই হযবরল অবস্থা দেখে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা।

আসাদুজ্জামান আসাদ নামে একজন বলেন, একটি স্কুলের প্রাণ হচ্ছেন প্রধান শিক্ষক। তিনি যদি নিজেই অনিয়ম এবং নির্ধারিত সময়ে স্কুলে না আসেন তাহলে সহকারী শিক্ষকরাও তো এমন করবেন।

স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি সোহেল আহমদ সাজু জানান, বিদ্যালয়ে তিনি যথাসময়ে নিয়মিত উপস্থিত হন না। এ বিষয়ে তাকে বার বার বলার পরেও তিনি কর্ণপাত করছেন না। ম্যানেজিং কমিটির সবাই নির্ধারিত সময়ে তাকে স্কুলে আসার জন্য অনুরোধ করেছেন, কিন্তু তিনি আসছেন না। উল্টো তিনি সভাপতি সহ সহকারী শিক্ষকদের সঙ্গে খারাপ আচরণ করে থাকেন।
অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষক আব্দুস সাত্তার আজাদ বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, এগুলো সব সাজানো।

বিশ্বম্ভরপুর উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মো. শফিকুল ইসলাম সরকার জানান, এ বিষয়ে একটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। তদন্তসাপেক্ষে ব্যবস্হা নেওয়া হবে।

বিশ্বম্ভরপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. সাদি উর রহিম জাদিদ জানান, এ বিষয়ে কোনো লিখিত অভিযোগ আমার হাতে এখনো আসেনি। আসলে বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন