1. mdjoy.jnu@gmail.com : admin : Shah Zoy
  2. stvsunamgonj@gmail.com : Admin. :
বৃহস্পতিবার, ২০ জানুয়ারী ২০২২, ০৫:৪৬ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
তাহিরপুরে সমালয় চাষাবাদ কর্মসূচির উদ্বোধন দোয়ারাবাজারে উপ-নির্বাচনে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী তানভীরের গণসংযোগ মৌলভীবাজারে বাড়িতে ঢুকে নারীসহ ২জনকে কুপিয়ে গুরুতর জখমের ঘটনায় আদালতে মামলা দায়ের দুই মামলার ফেরারী হয়ে জীবন বাচাতে পালিয়ে বেড়াচ্ছে সুনামগঞ্জের বিএনপি নেতা মোঃ অলি নবী তাহিরপুরে প্রথম বার সমলয় পদ্ধতিতে চাষাবাদ কওমি শিক্ষকদের মাঝে বিনামুল্যে শীতবস্ত্র বিতরন করেছে তাহিরপুর প্রশাসস তাহিরপুর উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে করোনা ও নতুন ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রন নিয়ে সর্তকতামুলক সভা  জাউয়াবাজার ডিগ্রি কলেজের শিক্ষার্থী আল আমিন হত্যা মামলায় তিন সহপাঠিকে যাবৎজীবন দন্ডাদেশ দিয়েছে জেলা ও দায়রা জজ সুনামগঞ্জের ধর্মপাশায় নৌকাকে ফেল করানোর অভিযোগ তুলেএমপি রতনকে দল থেকে বহিস্কারের দাবী জানিয়ে সংবাদ সম্মেলন এমপি রতনের নিজ কেন্দ্রে নৌকার পরাজয় নিয়ে উত্তাল হয়ে উঠছে সুনামগঞ্জের ধর্মপাশার রাজনীতি

দক্ষিন সুনামগঞ্জে মুজিববর্ষে আশ্রয়ন প্রকল্পের ঘর নির্মানে ব্যাপক অনিয়ম, ভেঙ্গে পড়েছে ১০/১২ টি

Reporter Name
  • আপডেট করা হয়েছে শনিবার, ১০ জুলাই, ২০২১
  • ২৮৮ বার পড়া হয়েছে

 

স্টাফ রিপোর্টারঃ

সুনামগঞ্জে পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নানের নিবার্চনী এলাকায় বসবাসের আগেই ভেঙ্গে পড়ছে মুজিব বর্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহার আশ্রায়ণ প্রকল্পের ঘর। উপজেলার পূর্বপাগলা ইউনিয়নের পিঠাপসী ও ঘোড়াডুম্বুর গ্রামে ১৫১ টি ঘর উপহার দেওয়া হয়। এর মধ্যে ১০/১২টি ঘরে ফাটল দেখা দিয়েছে। এ ছাড়া টানা বৃষ্টিতে ঘরের পাশের মাটি ধসে গেছে।

এলাকাবাসী সুত্র জানায়, স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আক্তার হোসেন প্রতি ঘর থেকে ২০ হাজার টাকা করে  অসহায় ভুমিহীন দরিদ্রদের কাছ থেকে নিয়ে ঘর দিয়েছেন । নিম্নমানের নির্মানসামগ্রী ব্যবহার করা হয়েছে। ৫০ থেকে ৬০ বস্তা সিমেন্ট ব্যবহারের কথা থাকলেও ২৫/ ৩০ বস্তা দিয়ে কাজ শেষ করা হয়েছে। ঘরে পাঁচটি জানালা দেওয়ার কথা থাকলেও কোথাও তিনটি কোথাও চারটি দেওয়া হয়েছে। তিন ইঞ্চি কাঠ ব্যবহারের কথা থাকলেও দেড় ইঞ্চি কাঠ ব্যবহার করা হয়েছে।

এ ছাড়া ইউনিয়ন চেয়ারম্যানদের বরাদ্দ থেকে মাটি ভরাটের ১২ লাখ টাকা নেওয়া হলেও মাটি ভরাট করা হয়নি।

এ ব্যাপারে দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি নূর মিয়া বলেন, এই আশ্রায়ন প্রকল্পে ব্যাপক অনিয়ম দুর্নীতি করা হয়েছে। প্রতিটি ঘর থেকে ১৫/২০ হাজার টাকা করে নেওয়া হয়েছে। অামি ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে ডিসি স্যারকে অনুরোধ করেছি, আপনি এসে দেখে যান কীভাবে দুর্নীতি করা হয়েছে।

দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা শাহাদাৎ হোসেন ভুইয়া বলেন, এ রকম ঘটনা আমার জানা নাই।

দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান নূর হোসেন বলেন, এ সব ঘরে বরাদ্দ খুব কম। নিচু জায়গা হওয়ায় ঘর ধেবে যেতে পারে। তবে, তদন্ত কমিটি করা হয়েছে। কেউ অনিয়ম করলে শাস্তি হবে।

দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আনোয়ার উজ জামান বলেন, আমি মাসখানেক আগে যোগদান করেছি। এই প্রকল্পে অনিয়মের বিষয়টি মাথায় রেখে ইতোমধ্যে পাঁচটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। সোমবারের মধ্যে তারা রিপোর্ট দিবেন। আমি নিজেও পরিদর্শন করবো। অনিয়ম হলে অবশ্যই ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন