1. mdjoy.jnu@gmail.com : admin : Shah Zoy
  2. satvsunamgonj@gmail.com : Admin. :
রবিবার, ১৪ জুলাই ২০২৪, ০৭:৪৯ পূর্বাহ্ন
  •                          

হাওরাঞ্চলের কথা ইপেপার

ব্রেকিং নিউজ
সুনামগঞ্জের বন্যা কবলিত ৫০০ পরিবারের মাঝে পূবালী ব্যাংকের খাদ্য সামগ্রী বিতরণ বিশ্বম্ভরপুর থানা পুলিশের সহায়তায় নিখুঁজ আনসার সদস্য আনোয়ারকে সিলেট থেকে উদ্ধার করল পুলিশ তাহেরপুরের টাঙ্গুয়ার হাওরে অভিযান চালিয়ে বিপুল পরিমাণ ছাই ধ্বংস ও জরিমানা সুনামগঞ্জে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময়কালে মাদক ও চোরাচালান বন্ধে সংকল্প ব্যক্ত করেছেন নবনিযুক্ত পুলিশ সুপার এমএন মুর্শেদ এমপি রনজিত সরকারের হস্তক্ষেপে তাহিরপুরে নৌ পথে চাঁদাবাজী বন্ধ : স্বস্তিতে নৌ শ্রমিকসহ ব্যবসায়ীরা নবনিযুক্ত সিলেট পুলিশ সুপারের সাথে সাংবাদিকদের মতবিনিময় তাহেরপুরে বন্যা ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে প্রধানমন্ত্রীর উপহার বিতরণ করলেন এমপি রঞ্জিত বিকাশ প্রতারণার ফাঁদে পড়ে ৩১ হাজার টাকা হারালেন সুনামগঞ্জের দরিদ্র কৃষক ছিদ্দেক আলী বিপুল পরিমাণ ভারতীয় নাসির বিড়িসহ এক কারবারিকে আটক করেছে কানাইঘাট থানা পুলিশ বৃহত্তর হরিপুর ট্রাক পিকআপ চালক সমিতির দ্বি—বার্ষিক নির্বাচনে সভাপতি সায়েদ সম্পাদক কামাল

কুলাউড়ায় মেলা বন্ধের দাবিতে চরম ক্ষোভের সৃষ্টি

Reporter Name
  • আপডেট করা হয়েছে মঙ্গলবার, ১৫ আগস্ট, ২০২৩
  • ১৬৩ বার পড়া হয়েছে

কুলাউড়ায় মেলা বন্ধের দাবি, সামনে পরিক্ষা। মৌলভীবাজারের কুলাউড়া উপজেলার পৃথিমপাশা ইউনিয়ন এলাকায় এইচএসসি পরীক্ষাকে সামনে রেখে মাসব্যাপী হস্ত কুটিরশিল্প মেলার অনুমোদন বাতিলের দাবি জানানো হয়েছে। স্থানীয়দের না জানিয়ে এ মেলার আয়োজন করায় এলাকায় চরম ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। ইতিমধ্যে মেলা বন্ধের দাবিতে রবির বাজার ব্যবসায়ী সমিতির নেতাকর্মীরা মানববন্ধন, বিক্ষোভসহ জেলা প্রশাসক বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করেছেন।

জানা যায়, পৃথিমপাশা ইউনিয়নের কানিকিয়ারি গ্রাম সংলগ্ন মাঠে এ মেলার আয়োজন করেছে মা ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট। এর দায়িত্বে রয়েছেন আবিদ হাসান লিটন নামে এক ব্যক্তি। তার দাবি, তিনি প্রশাসনের অনুমতি নিয়েছেন। অন্যদিকে, স্থানীয় জনসাধারণসহ ব্যবসায়ীরা বলছেন, এটি কীসের মেলা জানেন না তারা। এই মেলা এখানে হলে ব্যবসায়ীরা মারাত্মক ক্ষতির মুখে পড়বেন।

এ ছাড়া এলাকায় সংঘাতের সৃষ্টি হওয়ারও সম্ভাবনা রয়েছে। মেলা বন্ধের দাবিতে দফায় দফায় বাজার এলাকায় বৈঠক হচ্ছে। ইউনিয়ন পরিষদ এলাকায় মাইকিং করে সভাও করা হয়েছে। সর্বশেষ ব্যবসায়ী সমিতির নেতাকর্মীরা মানববন্ধন, বিক্ষোভসহ জেলা প্রশাসক বরাবর মেলা বন্ধের দাবিতে স্মারকলিপি প্রদান করেছেন।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মাহমুদুর রহমান খোন্দকার বলেন, বিভিন্ন শর্ত মোতাবেক ডিসি অফিস থেকে এ মেলার অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। মেলার আয়োজনকারীদের এলাকায় আইনশৃঙ্খলা যাতে শান্ত থাকে, সেদিক বিবেচনার জন্য বলা হয়েছে।

জেলা প্রশাসক ড. উর্মি বিনতে সালাম বলেন, মেলার বিভিন্ন শর্তগুলো মানায় এ মেলার অনুমতি দেওয়া হয়েছে। কোনো সংঘাতের সৃষ্টি হলে তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

রবির বাজার এলাকার বাসিন্দা, মৌলভীবাজার-(কুলাউড়া) আসনের সাবেক সংসদ সদস্য নবাব আলী আব্বাস খান বলেন, মেলা সম্পর্কে এলাকার জনসাধারণ, ব্যবসায়ীসহ ইউনিয়ন পরিষদ কেউই অবগত নয়। এ মেলা নিয়ে এলাকায় গ্রুপিং সৃষ্টি হয়েছে। মেলা এখানে না হওয়াই উত্তম বলে তিনি মনে করেন।

, সামনে পরিক্ষা। মৌলভীবাজারের কুলাউড়া উপজেলার পৃথিমপাশা ইউনিয়ন এলাকায় এইচএসসি পরীক্ষাকে সামনে রেখে মাসব্যাপী হস্ত কুটিরশিল্প মেলার অনুমোদন বাতিলের দাবি জানানো হয়েছে। স্থানীয়দের না জানিয়ে এ মেলার আয়োজন করায় এলাকায় চরম ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। ইতিমধ্যে মেলা বন্ধের দাবিতে রবির বাজার ব্যবসায়ী সমিতির নেতাকর্মীরা মানববন্ধন, বিক্ষোভসহ জেলা প্রশাসক বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করেছেন।

জানা যায়, পৃথিমপাশা ইউনিয়নের কানিকিয়ারি গ্রাম সংলগ্ন মাঠে এ মেলার আয়োজন করেছে মা ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট। এর দায়িত্বে রয়েছেন আবিদ হাসান লিটন নামে এক ব্যক্তি। তার দাবি, তিনি প্রশাসনের অনুমতি নিয়েছেন। অন্যদিকে, স্থানীয় জনসাধারণসহ ব্যবসায়ীরা বলছেন, এটি কীসের মেলা জানেন না তারা। এই মেলা এখানে হলে ব্যবসায়ীরা মারাত্মক ক্ষতির মুখে পড়বেন।

এ ছাড়া এলাকায় সংঘাতের সৃষ্টি হওয়ারও সম্ভাবনা রয়েছে। মেলা বন্ধের দাবিতে দফায় দফায় বাজার এলাকায় বৈঠক হচ্ছে। ইউনিয়ন পরিষদ এলাকায় মাইকিং করে সভাও করা হয়েছে। সর্বশেষ ব্যবসায়ী সমিতির নেতাকর্মীরা মানববন্ধন, বিক্ষোভসহ জেলা প্রশাসক বরাবর মেলা বন্ধের দাবিতে স্মারকলিপি প্রদান করেছেন।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মাহমুদুর রহমান খোন্দকার বলেন, বিভিন্ন শর্ত মোতাবেক ডিসি অফিস থেকে এ মেলার অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। মেলার আয়োজনকারীদের এলাকায় আইনশৃঙ্খলা যাতে শান্ত থাকে, সেদিক বিবেচনার জন্য বলা হয়েছে।

জেলা প্রশাসক ড. উর্মি বিনতে সালাম বলেন, মেলার বিভিন্ন শর্তগুলো মানায় এ মেলার অনুমতি দেওয়া হয়েছে। কোনো সংঘাতের সৃষ্টি হলে তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

রবির বাজার এলাকার বাসিন্দা, মৌলভীবাজার-(কুলাউড়া) আসনের সাবেক সংসদ সদস্য নবাব আলী আব্বাস খান বলেন, মেলা সম্পর্কে এলাকার জনসাধারণ, ব্যবসায়ীসহ ইউনিয়ন পরিষদ কেউই অবগত নয়। এ মেলা নিয়ে এলাকায় গ্রুপিং সৃষ্টি হয়েছে। মেলা এখানে না হওয়াই উত্তম বলে তিনি মনে করেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন