1. mdjoy.jnu@gmail.com : admin : Shah Zoy
  2. stvsunamgonj@gmail.com : Admin. :
শনিবার, ০২ জুলাই ২০২২, ১১:১৮ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থদের মধ্যে নগদ অর্থ বিতরণ বন্যার্থদের পাশে সিলেট বিল্ডাস ও শামীমাবাদ যুব সমাজ দি ডেইলী বাংলাদেশ টুডে পরিবারের অর্থায়নে ছাতকে বন্যার্তদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ ফতেপুরে বন্যার্তদের মাঝে বিশ্বাস বিল্ডার্স লিমিটেডের খাবার ও কাপড় বিতরণ বন্যায় কবলিত মানুষের পাশে কর্ম সেবা সংস্থা কোস্ট গার্ডের সহায়তায় নতুন জীবন পেল আলীপুরের গৃহবধু হোসনে আরা সুনামগঞ্জে বন্যার্তদের মাঝে বাংলাদেশ কোস্ট গার্ড এর ত্রাণ বিতরণ সুনামগঞ্জে ত্রাণ বিতরণ করছেন ঢাকা দক্ষিনের আ’লীগ নেতা শেখ মো: আজাহার বন্যায় মোকাবেলায় জনপ্রতিনিধি গ্রামবাসী, প্রশাসন ও পুলিশ একসাথে কাজ করতে হবে- বেনজির আহমদ ভয়াবহ বন্যায় র‌্যাব মানুষের পাশে ছিল পাশে থাকবে- ডিজি চৌধুরী আব্দুল্লাহ আল মামুন

এমপি রতনের নিজ কেন্দ্রে নৌকার পরাজয় নিয়ে উত্তাল হয়ে উঠছে সুনামগঞ্জের ধর্মপাশার রাজনীতি

Reporter Name
  • আপডেট করা হয়েছে শনিবার, ৮ জানুয়ারী, ২০২২
  • ১১৬৯ বার পড়া হয়েছে

স্টাফ রিপোর্টারঃ

ক্যাসেনো কর্মকান্ডে, অন্যের জমি দখল, দলীয় নেতাকর্মীদের দুরে রেখে বিএনপি জামায়াত নেতাদের সাথে ঘনিষ্টতা, জ্ঞাত বহির্ভুত সম্পদ অর্জন, বিদেশে অর্থপাচার, চাদাবাজী, ক্ষমতার অপব্যবহারসহ নানান কর্মকান্ডে জড়িত থাকায় দুদকের মামলায় অভিযুক্ত, ব্যাংক হিসাব ও পাসপোর্ট জব্দ, বিদেশে যাওয়া নিষেধাজ্ঞা প্রাপ্ত সুনামগঞ্জ-১ আসনের বিতর্কিত এমপি মোয়াজ্জেম হোসেন রতনের নিজ কেন্দ্রে নৌকার ভরাডুবিতে উত্তাল হয়ে উঠছে ধর্মপাশা উপজেলার সরকার দলীয় রাজনীতি। সুত্র জানায়, ৫ম ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে এমপির নিজ ইউনিয়ন পাইকুরাটিতে নৌকার প্রার্থীকে পরাজিত করা হয়েছে। এমপির নিজের কেন্দ্র পাইকুরাটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে আওয়ামী লীগের মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী এমএমএ রেজা পহেল নৌকা প্রতিক পেয়েছে মাত্র ৫৪ ভোট। অথচ একই কেন্দ্রে এমপির ঘনিষ্টজন হিসেবে পরিচিত মো. রোকনুজ্জামান ঘোড়া প্রতিক নিয়ে পেয়েছেন  ১ হাজার ৫১৪ ভোট। নৌকায় ভোট কম পাওয়ার জন্য এমএমএ রেজা পহেল এমপিকেই দায়ী করেছেন। এছাড়া বিজয়ী বিদ্রোহী প্রার্থী মোজাম্মেল হক ইকবালকেও এমপি রতন পরোক্ষভাবে সহযোগীতা করায় ৫ হাজার ১০৮ ভোট পেয়ে চশমা প্রতিক নিয়ে বিজয়ী হয়েছেন বলে পহেল দাবি করেছেন।
নৌকার প্রার্থী এমএ রেজা পহেল ৪ হাজার ৩৮৯ ভোট পেয়ে ৭১৯ ভোটের ব্যবধানে ইকবালের কাছে পরাজিত হন।
 মোজাম্মেল হক ইকবাল নৌকার প্রার্থীর বিরুদ্ধে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করায় উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতির পদ থেকে ইতোমধ্যে বহিস্কার হয়েছেন।
এমএমএ রেজা পহেল আরও অভিযোগ করে বলেন, এমপি রতনের বড় ভাই উপজেলা আওয়ামী লীগের ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক হাজি মাসুদ, পাইকুরাটি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি গোলাম মোস্তফা, সাধারণ সম্পাদক মাফিজ আলী (এমপির চাচা) নৌকার বিরোধীতা করে বিদ্রোহী প্রার্থীকে সহযোগীতা করেছেন। তিনি বুধবার রাতেই ভাটগাও ও থানুরাপাছাম কেন্দ্রে ভোট জালিয়াতি করে নৌকার ভোট বিজয়ী প্রার্থীর পক্ষে নেওয়া হয়েছে দাবি করে ফলাফল পুনঃগণনার জন্য সংশ্লিষ্ট রির্টানিং কর্মকর্তার কাছে আবেদন করেছেন।
এমএমএ রেজা পহেল বলেন, ‘এমপি রতনের মদদে নৌকাকে ফেল করানো হয়েছে এবং পরোক্ষভাবে ইকবাল ও রোকনুজ্জামানকে সহযোগীতা করেছেন এমপি রতন নিজেই। ভাটগাও কেন্দ্রে বিকাল ৪টা পর্যন্ত ১৩০০ ভোট কাস্টিং হলেও সময়ের পর এমপি রতনের নির্দেশে অবৈধভাবে ৭০০ ভোটে চশমা প্রতিকে সিল মারা হয়েছে। বিষয়টি স্থানীয় ইউএনও ও ওসিকে জানানোর পরও কোন ব্যবস্থা নেয়নি প্রশাসন।
ধর্মপাশা উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সম্পাদক শামীম আহমদ মুরাদ জানান, এমপি রতন সাহেব সব সময় নৌকার বিপক্ষে অবস্থান নিয়ে থাকেন। বিগত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আমার বিপক্ষে তার ভাইকে দাড় করিয়ে নৌকার পরাজয় ঘটিয়েছিল। আর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে তার নিজ ইউনিয়ন ও কেন্দ্রে নৌকা ডুবিয়েছেন। এ নিয়ে দলের হাই কমান্ডের কাছে অভিযোগ দেয়া হয়েছে। স্থানীয় রাজনীতি উত্তপ্ত হয়ে উঠছে। দলীয় নেতাকর্মীরা এমপির এ ধরনের কর্মকান্ড নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করছে।
এমপি মোয়াজ্জেম হোসেন রতন জানান, ভোট সুষ্ঠ ও নিরপেক্ষ হয়েছে, হারলে অনেক কথাই বলা যায়, ক্ষোভে দুঃখে এসব কথা বলে অনেকে, ভোটের দিন আমি নির্বাচনী এলাকায় ছিলাম না, রোকনুজ্জামানের বাড়ি আমার গ্রামে। এর বেশি আমি মন্তব্য করতে পারব না।

সংবাদটি শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন