1. mdjoy.jnu@gmail.com : admin : Shah Zoy
  2. satvsunamgonj@gmail.com : Admin. :
বুধবার, ২৯ মে ২০২৪, ০৫:৪৯ পূর্বাহ্ন
  •                          

হাওরাঞ্চলের কথা ইপেপার

ব্রেকিং নিউজ
সহিংসতা করে কেউ পার পাবে না : ইসি আলমগীর তৃতীয় ধাপে দেশের ৮৭ উপজেলায় ভোটগ্রহণ কাল গাজায় মানবাধিকার লঙ্ঘন নিয়ে ডয়েচে ভেলেকে তথ্যচিত্র তৈরির আহ্বান তথ্য প্রতিমন্ত্রীর স্ত্রী-সন্তানসহ বেনজীরকে দুদকে তলব ক্রিকেট: যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে বাংলাদেশের প্রস্তুতি ম্যাচ বাতিল আনোয়ারুল হত্যা : কলকাতার ওই ফ্ল্যাটের সেপটিক ট্যাংক থেকে মাংসের টুকরা উদ্ধার শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে দুইজন সহকারী প্রভোষ্ট নিয়োগ রাজনীতিতে নারীর ক্ষমতায়নকে ত্বরান্বিত করতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার কাজ করছে— এমপি রুমা চক্রবর্তী সিলেট নাসিং হোস্টেল যেন মিনি কারাগার! পাসপোর্ট অফিসে কোন ধরনের হয়রানী সহ্য করা হবে না— যুগ্ম সচিব নাসরিন জাহান

ইস্পাহানি বাংলাবিদ পঞ্চম বর্ষ সিলেট বিভাগের বাছাই পরীক্ষা সম্পন্ন

Reporter Name
  • আপডেট করা হয়েছে শুক্রবার, ২৭ জানুয়ারী, ২০২৩
  • ১৫৬ বার পড়া হয়েছে

উৎফল বড়ুয়া :: “বাংলায় জাগো ভরপুর” ইস্পাহানি মির্জাপুর বাংলাবিদ পঞ্চম বর্ষের সিলেট বিভাগের বাছাই পরীক্ষা আজ ২৭ জানুয়ারি ২০২৩ (শুক্রবার) সকাল ৯টায় সিলেট মহানগরীর জিন্দাবাজাস্থ সরকারি অগ্রগামী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজ-এ অনুষ্ঠিত হয়।
ইস্পাহানি বাংলাবিদ পঞ্চম বর্ষে
সিলেট বিভাগে বিভিন্ন স্কুলের ষষ্ঠ শ্রেণি থেকে দশম শ্রেণির প্রায় দুই হাজারের অধিক শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করেন।

বাংলাবিদ কী?
বাংলাদেশের অন্যতম শীর্ষস্থানীয় কোম্পানি ইস্পাহানি টি লিমিটেড এর উদ্যোগে দেশের অন্যতম জনপ্রিয় টিভি চ্যানেল- ‘চ্যানেল আই’ -এ বাংলা ভাষা নিয়ে মেধাভিত্তিক টিভি রিয়েলিটি শো ‘ইস্পাহানি মির্জাপুর বাংলাবিদ’ ২০১৭ সাল থেকে শুরু হয়েছে। নতুন প্রজন্মের কাছে শুদ্ধ বাংলা, বানান ও ব্যবহার ছড়িয়ে দিতে ইস্পাহানি আয়োজন করে বাংলা প্রতিযোগিতা ‘ইস্পাহানি মির্জাপুর বাংলাবিদ’। এ প্রতিযোগিতায় শুদ্ধ বাংলা ভাষার ব্যবহার, বানান চর্চা, শুদ্ধ উচ্চারণ ও ব্যাকরণের সঠিক প্রয়োগের মাধ্যমে ভিন্ন ভিন্ন পর্যায় শেষে চূড়ান্ত বিজয়ী নির্ধারণ করা হয়।

কেন এই প্রতিযোগিতা ?
ইস্পাহানি টি লিমিটেড বাংলাদেশের সবচেয়ে পুরনো ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানগুলোর একটি। শুধুমাত্র ব্যবসায়িক কর্মকাণ্ডের গণ্ডির মাঝে সীমাবদ্ধ না থেকে ইস্পাহানি গ্রুপ বিভিন্ন সমাজ উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ড চালিয়ে যাচ্ছে। আর এরই ধারাবাহিকতার অংশ হিসেবে বাংলার শুদ্ধতার চর্চা এবং এ ব্যাপারে দেশব্যাপী সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে কাজ করতে ইস্পাহানি বদ্ধপরিকর। আমাদের নতুন প্রজন্মকে শুদ্ধ বাংলা ভাষার ব্যবহার, বানান চর্চা, উচ্চারণ ও ব্যাকরণের সঠিক প্রয়োগ সম্পর্কে সচেতন করে তোলার লক্ষ্য নিয়ে ইস্পাহানি টি লিমিটেড আয়োজন করেছে সৃজনশীল টিভি রিয়েলিটি শো ‘ইস্পাহানি মির্জাপুর বাংলাবিদ’। বিভিন্ন চ্যানেলে ইংরেজি-হিন্দির আধিপত্যে শিশু এবং কিশোর বয়সীদের মনন-সংস্কৃতিতে যে বিরূপ নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে এ প্রতিযোগিতার আয়োজন সেক্ষেত্রে খুব সময়োপযোগী পদক্ষেপ হবে। এ প্রতিযোগিতা মেধাবী ছাত্র-ছাত্রীদের বের করে নিয়ে আসার, একই সাথে তাদের উচ্চতর পড়াশোনা এবং ব্যক্তিগত লাইব্রেরি করার অর্থায়নের মধ্য দিয়ে মেধা ও মনন বিকাশের জায়গা করে দেবে। ইস্পাহানি গ্রুপ দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করে উক্ত সৃজনশীল প্রতিযোগিতার মাধ্যমে নতুন প্রজন্মকে বাংলা ভাষার শুদ্ধ ব্যবহার, বানান চর্চা, উচ্চারণ, ও ব্যাকরণের সঠিক ব্যবহার সম্পর্কে সচেতন করে তুলতে পারবে। এবং বাংলা ভাষার ঐতিহ্যকে এক অনন্য মাত্রায় নিয়ে যাবে। পৃথিবীতে আমরাই একমাত্র জাতি যারা নিজেদের মাতৃভাষার অধিকার আদায়ের জন্য নিজেদের জীবনকে উৎসর্গ করেছি। পৃথিবীতে আর কোনও জাতি কখনোই মাতৃভাষার জন্য জীবন বিসর্জন দেয়নি। তাই বাঙালি হিসেবে এটি আমাদের একটি গর্বের স্থান। বাংলাদেশের শতকরা ৯৯ ভাগ মানুষ বাংলায় কথা বলে, বাংলায় পড়ে, বাংলায় ভাবে, বাংলায় ভালবাসে। বাংলায় তাঁদের মননের বিকাশ। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য; প্রমিত বাংলার চর্চা, শুদ্ধ বাংলার ব্যবহারে বাংলা একাডেমি, বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্র ও হাতে গোণা কিছু সংবাদপত্র ছাড়া কারো ভূমিকা চোখে পড়ার মত নয়। বইপুস্তক, প্রচারপত্র, বিলিপত্র, বিজ্ঞাপনের ব্যবহৃত মাধ্যমসমূহ, বাসে-রেলে, দাপ্তরিক কাগজপত্রে বাংলা বানানের ভুলের ছড়াছড়ি। আমরা দীর্ঘদিন ধরেই দেখে আসছি, শুদ্ধ বাংলার চর্চার প্রতি কিছুটা অবহেলা, কিছুটা ঔদাসিন্য থেকে আমাদের প্রিয় মাতৃভাষার প্রয়োগে ভুলের ছড়াছড়ি। আজ আমরা নিজেদের মনের অজান্তেই আমাদের প্রিয় মাতৃভাষাকে অপমানিত করে যাচ্ছি। আমরা আজ সঠিকভাবে বাংলার প্রয়োগ করছি না বরং পাশ্চাত্য সংস্কৃতির গ্যাঁড়াকলে বাংলা ভাষার অপব্যবহার করে যাচ্ছি যা বাঙালি জাতি হিসেবে সত্যি আমাদের জন্য লজ্জাকর। তাই ভাষার ব্যবহারকে তার সঠিক স্থান ফিরিয়ে দেওয়ার এটাই উপযুক্ত সময়। জেগে ওঠার সময় এখনই।

প্রতিযোগিতার লক্ষ্য:
এই প্রতিযোগিতার লক্ষ্য হচ্ছে পুঁথিগত এবং শ্রেণিকক্ষের ফলাফলমুখী বিদ্যাচর্চা এবং বিদেশী ভাষা ও সংস্কৃতির আগ্রাসন থেকে কোমলমতি শিক্ষার্থীদের রক্ষা করে শিক্ষাকে আনন্দময় করে তোলা; মেধা ও মননভিত্তিক এই প্রতিযোগিতার মাধ্যমে মেধা ও মননের শ্রেষ্ঠ ব্লেন্ডের মানুষদের খুঁজে বের করা এবং সমৃদ্ধ জাতি গঠনে অবদান রাখা।
অংশগ্রহণ কেন করবে?
এ প্রতিযোগিতার উদ্দেশ্য হচ্ছে, তোমাদের মধ্য থেকে মেধা ও মননের শ্রেষ্ঠ ব্লেন্ডের মানুষদের খুঁজে বের করা, যারা বাংলা ভাষা, বানান এবং বাংলা শব্দের ব্যবহারে দক্ষতা দেখিয়ে মেধা ও মননভিত্তিক ভিন্ন ভিন্ন বাছাই প্রক্রিয়া পার হয়ে প্রতি বিভাগ থেকে দশ জন করে যাবে ঢাকাতে চুড়ান্ত পর্বে। চুড়ান্ত পর্ব থেকে তাদের মধ্য থেকেই কেউ হবে দেশসেরা বাংলাবিদ। চূড়ান্ত প্রতিযোগিতায় শীর্ষস্থান অধিকারী প্রতিযোগী পাবে ১০ লক্ষ টাকার মেধাবৃত্তি এবং দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্থান অধিকারী পাবে যথাক্রমে ৩ লক্ষ টাকা ও ২ লক্ষ টাকার মেধাবৃত্তি। এছাড়াও প্রথম দশ জন প্রতিযোগী প্রত্যেকে পাবে ১টি ল্যাপটপসহ ব্যক্তিগত লাইব্রেরি করার জন্যে ৫০ হাজার টাকা সমমূল্যের বাংলা বই ও বইয়ের আলমারি। শীর্ষস্থান অধিকারীদের স্কুলের জন্যেও থাকছে বিশেষ সম্মাননাপত্র ও স্মারক। বাছাই পর্বের প্রতিযোগীদের মধ্য থেকে ৩ জন পাবে হাতের লেখার ওপর বিশেষ পুরস্কার।

সংবাদটি শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন