1. mdjoy.jnu@gmail.com : admin : Shah Zoy
  2. satvsunamgonj@gmail.com : Admin. :
শুক্রবার, ১৪ জুন ২০২৪, ০৩:২০ পূর্বাহ্ন
  •                          

হাওরাঞ্চলের কথা ইপেপার

ব্রেকিং নিউজ
চরমহল্লা আইডিয়াল স্কুলের ১০৯ জন শিক্ষার্থীকে রক্তের গ্রুপ জানিয়ে দিয়েছে বাঁধন সুনামগঞ্জ সদরের টুকের বাজার ব্যবসায়ী সমিতির কমিটি সম্পূর্ণ সিসিকে মেয়র প্রার্থী হওয়া মোশতাক গ্রেফতার শিক্ষায় পিছিয়ে পড়া চা শ্রমিক সন্তানদের মূল ধারায় ফিরিয়ে আনতে কাজ করছে এফআইভিডিবি সুনামগঞ্জে ভাবীকে কুপিয়ে হত্যার ‍নায়ক আইনুলকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ সহিংসতা করে কেউ পার পাবে না : ইসি আলমগীর তৃতীয় ধাপে দেশের ৮৭ উপজেলায় ভোটগ্রহণ কাল গাজায় মানবাধিকার লঙ্ঘন নিয়ে ডয়েচে ভেলেকে তথ্যচিত্র তৈরির আহ্বান তথ্য প্রতিমন্ত্রীর স্ত্রী-সন্তানসহ বেনজীরকে দুদকে তলব ক্রিকেট: যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে বাংলাদেশের প্রস্তুতি ম্যাচ বাতিল

আন্দোলনের মুখে বাড়তি শুল্ক আংশিক প্রত্যাহার করায় চালু হলো সিলেটের ১৩ বন্দরের কার্যক্রম

Reporter Name
  • আপডেট করা হয়েছে সোমবার, ২১ আগস্ট, ২০২৩
  • ১৩২ বার পড়া হয়েছে

স্টাফ রিপোর্টার:

আন্দোলনের মুখে বাড়তি শুল্ক  আংশিক প্রত্যাহার করায় চালু হয়েছে সিলেটের ১৩টি শুল্ক ষ্টেশন, প্রাণ ফিরে পেয়েছে ব্যবসায়ী ও শ্রমিকদের মাঝে। জানা যায়,

লিখিত নির্দেশনা ছাড়াই অতিরিক্ত ২ ডলার শুল্ক বৃদ্ধি এবং ব্যবসায়ীদের নামে মামলা রুজুর প্রতিবাদে গেল বুধবার থেকে টানা ৫দিন সিলেটের ১৩টি শুল্ক ষ্টেশনে আমদানী রফতানী বন্ধ রেখেছিল ব্যবসায়ীরা। রবিবার ব্যবসায়ীদের সাথে আলোচনার পর বাড়তি শুল্ক প্রত্যাহার করায় সোমবার থেকে চালু হয়েছে সকল বন্দরের কার্যক্রম।

সোমবার (২১ আগস্ট) দুপুর ১২টা ১মিনিট থেকে ভারত থেকে পাথর আমদানি শুরুর মাধ্যমে বন্দরের কার্যক্রম ফিরে আসে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সিলেট  কাস্টমস এক্সাইজ ভ্যাট কমিশনারেট সিলেটের উপ—কমিশনার (সদর দপ্তর) সোলাইমান হোসেন। তিনি বলেন, বোল্ডার ও চুনাপাথরে আমদানিতে টন প্রতি যথাক্রমে ১১ ও সাড়ে ১১ ডলার থেকে ১২ সাড়ে ১২ ডলার করার প্রস্তাবনা ছিল। কিন্তু ব্যবসায়ীরা তাতে রাজি না হওয়ায় আন্দোলনে গিয়েছিল এবং তারা পাথর আমদানি বন্ধ রেখেছিল। রবিবার (২০ আগস্ট) ব্যবসায়ীদের নিয়ে অনুষ্ঠিত বৈঠকে এক ডলারের কম অর্থাৎ ৭৫ সেন্ট করে টন প্রতি রাজস্ব বৃদ্ধি করা হয়েছে এবং ব্যবসায়ীরা সম্মত হওয়ায় আজ থেকে শুষ্ক বন্দর দিয়ে পাথর—চুনাপাথর আমদানি শুরু করেছেন। তবে কয়লা কিংবা অন্য কোনো পণ্য আমদানি নিয়ে কোনো ধরনের ব্যাঘাত সৃষ্টি হয়নি।  তিনি আরও বলেন, প্রায় দুই বছর আগে বোল্ডার ও চুনাপাথরে আমদানিতে টন প্রতি যথাক্রমে ১১ ও সাড়ে ১১ ডলার ধার্য ছিল। এছাড়া ৭/৮ বছর আগে বোল্ডার ও চুনাপাথর আমদানিতে টন প্রতি রাজস্ব ছিল ৯ ও সাড়ে ৯ ডলার। ব্যবসায়ীরা জানান, আমদানি শুল্ক ও কাস্টমস ডিউটি বৃদ্ধির প্রতিবাদে গত বুধবার (১৬ আগস্ট) থেকে সিলেট বিভাগের সব স্থলবন্দর ও শুল্কস্টেশন দিয়ে পাথর ও চুনাপাথর আমদানি বন্ধ রাখা হয়েছিল। বিষয়টির শান্তিপূর্ন সমাধান হওয়ায় ব্যবসায়ীরা আমদানী রফতানী করতে শুরু করেছে।

আরও জানা যায়, শুল্ক বাড়ানো নিয়ে কয়েকদিন ধরেই স্থলবন্দর ও কাস্টমস কর্মকর্তাদের সঙ্গে আমদানিকারকদের বাদানুবাদ চলছিল। ব্যবসায়ীরা বাড়তি শুল্ক প্রত্যাহারের দাবি জানালেও কাস্টমস কর্মকর্তারা রাজি না হওয়ায় আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছিল তারা।  অবশ্য রবিবার (২০ আগস্ট) আলোচনায় সমাধান হওয়ায় আমদানি সচল করা হয়।

ব্যবসায়ী নেতারা জানান, এমনিতেই ব্যবসা বানিজ্যের অবস্থা খুবই খারাপ। তার ওপর টন প্রতি দুই ডলার করে কাস্টমস ডিউটি বাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। কাস্টমসের পক্ষ থেকে মৌখিকভাবে চুনাপাথরের ডিউটি (ইমপোর্ট অ্যাসেসমেন্ট রেট) সাড়ে ১১ ডলার থেকে বাড়িয়ে সাড়ে ১২ ডলার এবং বড় পাথরের (বোল্ডার) রেট ১১ ডলার থেকে বাড়িয়ে ১৩ ডলার করার কথা জানানো হয়েছে। এর ফলে প্রতি ট্রাকে ব্যয় ১২০০ থেকে ১৩০০ টাকা বেড়ে যাবে। তাই সুরাহা না হওয়া পর্যন্ত বোল্ডার ও চুনাপাথর আমদানি বন্ধ রাখা হয়েছিল।

সংবাদটি শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন